Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

উপজেলা ভোট : ইসির সংশোধনী প্রস্তাবে আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মতি

ss-ec-building-2023-08

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের জন্য নির্বাচনী আচরণ ও বিধিমালায় কমিশনের প্রস্তাবিত সংশোধনে সম্মতি দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। এর ফলে আগামী ৪মে শুরু হতে যাওয়া স্থানীয় সরকারের এই ভোটে প্রার্থীদের নতুন বিধি অনুসরণ করতে হবে।

আইন মন্ত্রণালয়ের এই সম্মতির কথা বুধবার রাতে সকাল সন্ধ্যাকে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ।

তিনি বলেন, “আজ আইন মন্ত্রণালয় থেকে সব কাগজপত্র এসেছে। নির্বাচন কমিশন থেকে যেসব সংশোধনী প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল, তার মূল প্রস্তাবগুলো মেনে নিয়েছে মন্ত্রণালয়। তেমন কোনও পরিবর্তন নেই।”

বৃহস্পতিবার অথবা রবিবারের মধ্যে আইন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত বিধি-বিধান বা এসআরও জারি করবে বলে জানান ইসির অতিরিক্ত সচিব।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন (আচরণ বিধিমালা) ২০১৬-তে আটটি সংশোধনী প্রস্তাব এবং উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা-২০১৩ তে ২৬ টি সংশোধনী প্রস্তাব পাঠিয়েছিল কমিশন।

যার মধ্যে ছিল নির্বাচনী প্রচারের কাজে ব্যবহৃত ব্যানার-পোস্টার রঙিন ছাপানোর অনুমতি দেওয়া।

এছাড়া ডিজিটাল প্রচারের সুযোগ সৃষ্টি, প্রতীক বরাদ্দের আগে থেকেই প্রচারের সুযোগ দেওয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ২৫০ জন ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষরের বিধান বাতিলসহ একগুচ্ছ বড় পরিবর্তনে কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশনের সঙ্গে সম্মতি দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়।

উপজেলা পরিষদ (আচরণ বিধিমালা), ২০১৬ তে কমিশন যে সব সংশোধনী প্রস্তাব পাঠিয়েছিল তার মধ্যে ছিল প্রতীক বরাদ্দের আগে জনসংযোগ এবং ডিজিটাল মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারের সুযোগ দেওয়া।

এছাড়া প্রতি ইউনিয়নে একটি এবং পৌরসভার প্রতি তিনটি ওয়ার্ডে একটির বেশি নির্বাচনি ক্যাম্প বা অফিস স্থাপন করা যাবে না বলেও প্রস্তাব করা হয়েছিল। নির্বাচনি ক্যাম্প বা অফিসের আয়তন ৬০০ বর্গফুটের বেশি হতে পারবে না, প্রচারের কাজে একটির বেশি শব্দযন্ত্র বা জনসভায় চারটির বেশি শব্দযন্ত্র ব্যবহার না করার নিয়মও প্রস্তাব করা হয়। প্রচারের কাজে পোস্টার বা ব্যানারে পলিথিনের ব্যবহার না করার সুপারিশও করা হয়।

স্থানীয় সরকার (উপজেলা পরিষদ) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১৩ তে যেসব সংশোধনী চেয়েছিল আউয়াল কমিশন তার মধ্যে ছিল স্বতন্ত্র প্রার্থীর ক্ষেত্রে ভোটারের সমর্থনেরযুক্ত তালিকা দাখিলের বিধান বিলুপ্ত করা। অনলাইনে মনোনয়নপত্র দাখিল বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়।

চেয়ারম্যানের ক্ষেত্রে জামানত ১ লাখ টাকা, ভাইস চেয়ারম্যানের ক্ষেত্রে ৭৫ হাজার টাকা এবং নারী সদস্যের ক্ষেত্রে পাঁচ হাজার টাকা জামানতের প্রস্তাবসহ বেশকিছু প্রস্তাব করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist