Beta
সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪
Beta
সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪

মতামত

জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে নেট জিরো কত দূরে  

আধুনিক সমাজের সর্বত্রই বিদ্যুতায়নের একটা প্রবল গতি দেখা যাচ্ছে। এর ফলে প্রাইমারি এনার্জি বা মুখ্য জ্বালানি সরাসরি ব্যবহৃত (এক্ষেত্রে দহন) না হয়ে আগে বিদ্যুৎশক্তিতে রূপান্তরিত হয়ে পরে বৈদ্যুতিক তারবাহিত লোডসেন্টারে বা ব্যবহারের প্রান্তে যাচ্ছে।

যে স্বপ্ন অপূর্ণ রেখে শফী আহমেদের বিদায়

এখন সেই রাজনীতি হারিয়ে গেছে বলে একমাত্র রাজনীতির প্রতিই বিশ্বস্ত ও আস্থাবান শফী আহমেদ তথাকথিত রাজনীতির সমীকরণ থেকে ছিটকে পড়েছিলেন।

সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ কাঠামো এবং জলবায়ু-কূটনীতি কেন জরুরি

রাষ্ট্র একটি দিনকে সুন্দরবনের জন্য জাতীয় দিবস ঘোষণা করতে পারে। রাষ্ট্রের এই তৎপরতা নতুন প্রজন্মেকে সুন্দরবনের প্রতি দায়বদ্ধ ও দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখবে।

কৃষি জমির উত্তরাধিকারে হিন্দু বিধবা স্ত্রীর ভাগবখরা-৬

ফলে, পূর্ব বাংলায় শুধু সিলেটের কৃষি জমিতে হিন্দু বিধবা স্ত্রীরা এবং বিধবা পুত্রবধু ও বিধবা পৌত্রবধুরা ১৯৩৭ সালের ঐ আইন অনুযায়ী ভাগ পাবার হকদার হয়।

কাইয়ার গুদাম কি স্বাধীন হয় নাই?

ফেঞ্চুগঞ্জের কাইয়ার গুদাম এখনও কি পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের দখলে? তা না হলে অনেক আগেই কাইয়ার গুদামকে বধ্যভূমি হিসেবে সংরক্ষণ করা যেত। এই লজ্জা আমাদের।

আর কোন পোস্ট নেই

জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে নেট জিরো কত দূরে  

আধুনিক সমাজের সর্বত্রই বিদ্যুতায়নের একটা প্রবল গতি দেখা যাচ্ছে। এর ফলে প্রাইমারি এনার্জি বা মুখ্য জ্বালানি সরাসরি ব্যবহৃত (এক্ষেত্রে দহন) না হয়ে আগে বিদ্যুৎশক্তিতে রূপান্তরিত হয়ে পরে বৈদ্যুতিক তারবাহিত লোডসেন্টারে বা ব্যবহারের প্রান্তে যাচ্ছে।

যে স্বপ্ন অপূর্ণ রেখে শফী আহমেদের বিদায়

এখন সেই রাজনীতি হারিয়ে গেছে বলে একমাত্র রাজনীতির প্রতিই বিশ্বস্ত ও আস্থাবান শফী আহমেদ তথাকথিত রাজনীতির সমীকরণ থেকে ছিটকে পড়েছিলেন।

সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ কাঠামো এবং জলবায়ু-কূটনীতি কেন জরুরি

রাষ্ট্র একটি দিনকে সুন্দরবনের জন্য জাতীয় দিবস ঘোষণা করতে পারে। রাষ্ট্রের এই তৎপরতা নতুন প্রজন্মেকে সুন্দরবনের প্রতি দায়বদ্ধ ও দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখবে।

কৃষি জমির উত্তরাধিকারে হিন্দু বিধবা স্ত্রীর ভাগবখরা-৬

ফলে, পূর্ব বাংলায় শুধু সিলেটের কৃষি জমিতে হিন্দু বিধবা স্ত্রীরা এবং বিধবা পুত্রবধু ও বিধবা পৌত্রবধুরা ১৯৩৭ সালের ঐ আইন অনুযায়ী ভাগ পাবার হকদার হয়।

কাইয়ার গুদাম কি স্বাধীন হয় নাই?

ফেঞ্চুগঞ্জের কাইয়ার গুদাম এখনও কি পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের দখলে? তা না হলে অনেক আগেই কাইয়ার গুদামকে বধ্যভূমি হিসেবে সংরক্ষণ করা যেত। এই লজ্জা আমাদের।

আর কোন পোস্ট নেই

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত

ad