Beta
শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪

আতলেতিকোর ‘শেষ’ বলে কিছু নেই

আতলেতিকো-০৭

ইন্টার মিলানের মাঠ থেকে ১-০ গোলে হেরে ফিরেছিল আতলেতিকো মাদ্রিদ। পরের লেগ নিজেদের মাঠে হওয়ায় আশা বেঁচে ছিল মাদ্রিদের ক্লাবটির। কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ষোলোর ফিরতি লেগেও যে শুরুতে পিছিয়ে পড়ল তারা। ইন্টার পেয়ে যায় ২-০ গোলের অগ্রগামিতা। তাহলে কি বিদায়ঘণ্টা বেজে গেল ডিয়েগো সিমিওনের দলের? দলটি আতলেতিকো, যাদের ‘শেষ’ বলে কিছু নেই। সেটিই ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতা দিয়ে আরেকবার দেখাল রোজিব্লাঙ্কোস।

বুধবার (১৩ মার্চ) রাতে চ্যাম্পিয়নস লিগে ইন্টার মিলানকে টাইব্রেকারে ৩-২ গোলে হারিয়েছে আতলেতিকো। প্রথম লেগ তারা হেরেছিল ১-০ গোলে। ফিরতি লেগের নির্ধারিত সময় ২-১ গোলের জয় দিয়ে শেষ করে মাদ্রিদের ক্লাবটি। ফলে দুই লেগ মিলিয়ে স্কোরলাইন হয় সমান ২-২। ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। সেখানে কোনও গোল না হলে ফল নিষ্পত্তি হয় টাইব্রেকারে।

অল্প কথাতেই হয়তো বলে দেওয়া গেল ম্যাচের চিত্র। তবে ওয়ান্দা মেত্রোপলিতানোর ম্যাচের পরতে পরতে ছিল উত্তেজনার রসদ। প্রথম লেগ হেরে আসায় গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু অতি আক্রমণাত্মক মনোভাবই হয়তো কাল হয়ে দাঁড়ায়। ৩৩ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটার থেকে গোল করে ইতালিয়ান ক্লাবকে এগিয়ে নেন ফেদেরিকো দিমারকো।

ভড়কে যায়নি আতলেতিকো। বরং ফিরে এসেছে দুর্দান্তভাবে। স্কোরলাইনে সমতা আনতে লেগেছে মাত্র ২ মিনিট। ইন্টারের রক্ষণের ভুল কাজে লাগিয়ে তাদের খেলায় ফেরান আঁতোয়া গ্রিজমান।

সমতা এলেও তখনও ইন্টার চালকের আসনে। কারণ ঘরের মাঠের গোলটি তাদের এগিয়ে রেখেছে। আতলেতিকোর আরেকটি গোল করতেই হবে। একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে। কিন্তু গোলের দেখা পাচ্ছিল না।

ম্যাচ একেবারে শেষ পর্যায়ে তখন। অবশেষে স্বাগতিকদের কাঙ্ক্ষিত গোল এনে দেন মেমফিস ডিপাই। ৮৫ মিনিটে তার একটি শট পোস্টে প্রতিহত হয়েছিল। তবে ২ মিনিট পর আর ভুল করেননি ডাচ ফরোয়ার্ড।

দুই লেগ মিলিয়ে ২-০ গোলে পিছিয়ে থাকার পর ফিরে আসার নতুন গল্প লিখে আতলেতিকো। আত্মবিশ্বাসে ভরপুর এই দলকে থামাতেও পারেনি ইন্টার। টাইব্রেকারে আতলেতিকো গোলকিপার ইয়ান ওবলাকের অসাধারণ পারফরম্যান্সে কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে যায় তারা।

ওবলাক ঠেকিয়ে দেন আলেক্সিস সানচেস ও ডেভি ক্লাসেনের শট। আর লাউতারো মার্তিনেস বল মারের বারের ওপর দিয়ে। অন্যদিকে আতলেতিকোর সাউল লক্ষ্যভেদ করতে ব্যর্থ হলেও মাদ্রিদের ক্লাবের শেষ আটে ওঠা আটকায়নি।

শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে মুখোমুখি হয়েছিল বরুসিয়া ডর্টমুন্ড ও পিএসভি আইন্দহোভেন। সিগনাল ইদুনা পার্কে ডাচ ক্লাবকে ২-০ গোলে হারিয়েছে বরুসিয়া। তাতে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-১ অগ্রগামিতায় কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে গেছে জার্মান ক্লাবটি।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist