Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

‘ভবনটিতে ফায়ার এক্সিট বলে কিছু ছিল না’

আগুনে পুড়ে গেছে 'গ্রিন কোজি কটেজ' নামের ভবনটি। ছবি : সকাল সন্ধ্যা
আগুনে পুড়ে গেছে 'গ্রিন কোজি কটেজ' নামের ভবনটি। ছবি : সকাল সন্ধ্যা

রাহাত মিয়া শুভ মোবাইল ফোন ও এক্সেসরিজের ব্যবসা করেন। বেইলি রোডের যে ভবনটি আগুনে পুড়েছে, সেই ভবনেই তার দোকান। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাসায় দিকে রওনা হয়েছিলেন। তবে কিছুক্ষণ পর আগুন লাগার খবর শুনে ফিরে এসে দেখেন তার দোকানের কিছুই অবশিষ্ট নেই। আগুনের সূত্রপাত যে দোকান থেকে, সেই দোকানের ঠিক বিপরীতেই ছিল তার দোকান।

শুভর সঙ্গে কথা হয় সকাল সন্ধ্যার। তিনি বলেন, “এই ভবনে আগুন লাগলে তা নেভানোর যথাযথ ব্যবস্থা ছিল না। কয়েকটা মেশিন ছিল, কাজ করে কিনা আমরা জানি না। আগুন লাগলে বের হওয়ার কোনও বিকল্প ব্যবস্থাও ছিল না।”

তিনি রাত ৯টার দিকে দোকান বন্ধ করলেও খাবারের দোকানগুলো রাত ১১-১২টা পর্যন্ত চলে জানিয়ে শুভ বলেন, “আমার কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে জানি না। এখনও তো ভেতরে ঢুকতেই দিল না। আমার দোকানে দেড় কোটি টাকার মালামাল ছিল।”

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে বেইলি রোডের ‘গ্রিন কোজি কটেজ’ নামের ভবনটিতে আগুন লেগে অন্তত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভবনটিতে কাচ্চি ভাইসহ বেশ কয়েকটি খাবারের দোকান, মোবাইল ফোন ও কাপড়ের দোকান ছিল। ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিটের চেষ্টায় প্রায় তিন ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

‘কাচ্চি ভাই’ রেস্টুরেন্টের কর্মচারী সিয়ামও ভবনটিতে পর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপনী সরঞ্জাম না থাকার কথা জানিয়েছেন। তিনি সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “কয়েকটা আগুন নেভানোর যন্ত্র ছিল, কিন্তু ওই সময় অনেকগুলোই কাজ করছিল না বলে সবাই বলাবলি করছিল। আমরা পেছনের গ্রিল ভেঙে লাফিয়ে নেমেছি।”

তিনি বলেন, “কালকে বৃহস্পতিবার থাকার কারণে অনেক পরিবার এসেছিল। বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর সবাই চিৎকার করা শুরু করেছিল। ভয়ানক অবস্থা হয়ে গিয়েছিল।”

ভবনে নিচতলায় চালু হওয়া নতুন একটি দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে জানিয়ে সিয়াম বলেন, “নিচতলায় চা খাওয়ার নতুন দোকান ‘চুমুক’ চালু হয়েছে ৪-৫ দিন। এখনও ডেকোরেশন শেষ হয় নাই। ওই জায়গা থেকেই আগুনটা শুরু হয়।”

আগুন নেভানো বা আগুন লাগলে দ্রুত বের হওয়ার ভালো ব্যবস্থা না থাকার কথা বলেছেন ‘পিৎজা ইন’ দোকানের কর্মকর্তা সালমান আলিমও। তিনি বলেন, “ভবনে একটি লিফট আর একটি সিঁড়ি বাদে আর কিছুই ছিল না। ফায়ার এক্সিট বলে কোনও কিছু এ ভবনে ছিল না।”

ভবনটিতে পর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপনী সরঞ্জাম না থাকার কথা জানিয়েছেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত ফায়ার সার্ভিসের কয়েকজন কর্মকর্তাও।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist