Beta
সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪
বেইলি রোডের আগুন

কাচ্চি ভাইয়ের কর্মী জিহাদের বেতনে চলত সংসার

কাচ্চি ভাইয়ের কর্মী নিহত জিহাদ শিকদার।
কাচ্চি ভাইয়ের কর্মী নিহত জিহাদ শিকদার।

মাদারীপুরের ছেলে জিহাদ শিকদার (১৯)। ছিলেন দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র। সংসারের হাল ধরতে তিনবছর আগে এসেছিলেন ঢাকায়। কাজ নিয়েছিলেন বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে। সেখান থেকে পাওয়া বেতনের অর্থেই চলত গ্রামে থাকা ছোট ভাইসহ বাবা-মার সংসার।

চাকরি করে সংসারে স্বচ্ছলতা আনার স্বপ্ন আর পূরণ হয়নি জিহাদের। বৃহস্পতিবার রাতে নিজের কর্মক্ষেত্রেই আগুনে পুড়ে মারা গেছেন তিনি।

এই আকস্মিক ঘটনায় মাদারীপুরের গ্রামের বাড়ি এখন শোকে স্তব্ধ। বাড়ির একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে দিশেহারা পরিবার।

নিহত জিহাদ মাদারীপুরের কালকিনির আলিমাবাদ গ্রামের জাকির শিকদারের ছেলে। তার ছোটভাই রিয়াদ শিকদার জানান, মাদারীপুরের কালকিনির সাহেবরামপুর কবি নজরুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজে মানবিক বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন জিহাদ। বড়বোনের বিয়ের দুইভাই ও বয়স্ক মা-বাবাকে নিয়েই ছিল তাদের পরিবার। সংসারের খরচ মেটাতে তিন বছর আগে ঢাকায় চলে যান জিহাদ। প্রতিমাসেই বাড়িতে পাঠাতের টাকা।

শুক্রবার দুপুরে জিহাদের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের পর এলাকাজুড়ে নেমে আসে শোকের ছায়া।

রিয়াদ সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “ভাইয়ের মৃত্যুতে আমাদের বড় ক্ষতি হয়ে গেল। আমি আমার ভাইকে চিরদিনের জন্য হারিয়ে ফেললাম।”

উপার্জনক্ষম ছেলের মৃত্যুতে অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়াতে সরকারি সহযোগিতা কামনা করেছেন স্বজন ও এলাকাবাসী।

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাশ বলেন, জিহাদের মৃত্যুতে সমবেদনা জানানোর ভাষা নেই। তবে তার পরিবার কোনও সহযোগিতা চাইলে সবসময় পাশে থাকবে প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজ নামের একটি ভবনে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় মারা যান ৪৬ জন। এই নিহতদের মধ্যে একজন জিহাদ।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist