Beta
বুধবার, ২২ মে, ২০২৪
Beta
বুধবার, ২২ মে, ২০২৪

বান্দরবানে পর্যটকবাহী গাড়ি খাদে, নিহত ২

হতাহতদের নেওয়া হয় হাসপাতালে।
হতাহতদের নেওয়া হয় হাসপাতালে।
Picture of প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

বান্দরবানে রুমা-বগালেক-কেওক্রাডং সড়কে একটি পর্যটকবাহী জিপ গাড়ি পাহাড়ি খাদে পড়ে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।  

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ‘ভ্রমণকন্যা’ নামের একটি সংগঠনের হয়ে ৫৮ নারী পর্যটক একসঙ্গে বান্দরবানে গেছিলেন। সেখানে কেওক্রাডং থেকে ফেরার পথে তাদের বহনকারী একটি জিপ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়।

দুর্ঘটনাকবলিত গাড়িটিতে ছিলেন ১৩ জন। তার মধ্যে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ফিরোজা বেগম (৫৩) ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী জয়নব খাতুন। আহত হন রাফান, উষসী নাগ, জবা রায় নাগ, মাহফুজা ইসলাম, আমেনা বেগম, তাহমিনা তানজিম তালুকদার, তাননিম, রিজভী, আঞ্জুমান হক, ইতু ও স্বর্ণা।

ভ্রমণকন্যা – ট্রাভেলেটস অব বাংলাদেশ গ্রুপের প্রেসিডেন্ট সাকিয়া হকও ছিলেন ৫৮ জনের দলে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এক ফেইসবুক পোস্টে তিনি দুর্ঘটনার কথা জানান। সাকিয়া লিখেছেন, ‘‘আমাদের জিপ ড্রাইভারের ভুলে ব্রেক ফেল করে খাদে পড়ে গেছে কেওক্রাডং থেকে।’’

ডিসি, সিএস, আর্মিকে খবর দেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘‘আমাদের এয়ার অ্যাম্বুলেন্স দরকার।’’ পরে আরেক পোস্টে তিনি জানান, কুয়াশার কারণে সেখানে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স যেতে পারেনি।

রুমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ মাহবুবুল হক ঘটনাস্থল থেকে জানিয়েছেন, গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রায় ৫০০ মিটার পাহাড়ি খাদে পড়ে যায়।

ঘটনাস্থল থেকে পর্যটকদের গাইড মুনথাং বম জানান, পর্যটক দলটি কেওক্রাডং দেখে ফিরছিলেন। এ সময় গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে উল্টে যায়। প্রথমে স্থানীয় লোকজন ও সঙ্গে থাকা অন্য গাড়ির পর্যটকরা হতাহতদের উদ্ধারের চেষ্টা করেন।

সাকিয়া হক আরও জানান, আহতদের রুমা উপজেলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার পর বান্দরবানে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে গুরুতর আহতদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ আইসিইউতে পাঠানো হচ্ছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত