Beta
রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪

উত্তরপত্রে ‘অনৈতিক প্রস্তাব’, বার কাউন্সিলে ৫ বছর নিষিদ্ধ ৫ শিক্ষার্থী

SS-Bangladesh-Bar-Council-240324

আইনজীবী হিসেবে এনরোলমেন্টের (তালিকাভুক্তি) লিখিত পরীক্ষায় উত্তরপত্রে সঠিক উত্তর না লিখে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়ায় ৫ বছরের জন্য ৫ শিক্ষার্থীকে নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল।

রবিবার (২৪ মার্চ) বার কাউন্সিল সচিবের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা হলেন- ইন্টার ন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রামের মো. লুৎফর রহমান, ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সাইন্স (ইউআইটিএস) মোছা. মাকসুদা পারভীন, মেট্রোপলিস আইডিয়াল ল কলেজের নিজাম উদ্দিন আহমেদ, বরিশাল ল কলেজের মো. মনিরুজ্জামান, ও শহীদ জিয়াউর রহমান ল কলেজ ঝিনাইদহের ছাত্র মো. আনিসুর রহমান।

২০২৩ সালের ডিসেম্বরে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন এই শিক্ষার্থীরা। নিষিদ্ধ হওয়ায় তারা আগামী ৫ বছর বার কাউন্সিলের কোনও পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন না।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বার কাউন্সিলের এনরোলমেন্ট লিখিত পরীক্ষার উত্তরপত্রে ৫ জন পরীক্ষার্থী নিজ ফোন নম্বর প্রদান, অর্থের বিনিময়ে পাস করিয়ে দেওয়ার জন্য পরীক্ষকের কাছে প্রস্তাব, পরীক্ষাকেন্দ্রে দায়িত্বরত নারী ইনভিজিলেটর সম্পর্কে উত্তরপত্রে অনভিপ্রেত/অশালীন কথাবার্তা লেখা প্রভৃতিসহ অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছেন।

আইনের শিক্ষার্থী ও আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ার একজন শিক্ষনবিশ প্রার্থীর তরফ থেকে বার কাউন্সিল লিখিত পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়ণের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারকের কাছে এ ধরনের অনৈতিক প্রস্তাব রাখা গোটা আইন অঙ্গনকে কলুষিত করার শামিল।

সেইসঙ্গে আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বার কাউন্সিলের জন্যও এই ধরনের ঘটনা অবমাননাকর। এ ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বার কাউন্সিলের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার দায়ে বার কাউন্সিল এনরোলমেন্ট কমিটি ৫ শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে আগামী ৫ বছরের জন্য এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

ভবিষ্যতে যাতে কোনও পরীক্ষার্থী বার কাউন্সিলের কোনও পরীক্ষায় এ ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত না হয় সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক করা হচ্ছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

সচিব জ্যেষ্ঠ জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুর রহমান সরদার সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “পরীক্ষার খাতায় এ ধরনের অন্যায় প্রস্তাব লেখার কারণে এনরোলমেন্ট কমিটি পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। পরীক্ষার খাতায় কেউ মোবাইল নম্বর দিয়েছেন, কেউ লিখেছেন আমি চেক দিলাম টাকার সংখ্যা বসিয়ে নেন। এই ধরনের কথা লেখায় কমিটি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

২০২৩ সালের ২৩ ডিসেম্বর বার কাউন্সিলের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি ফল প্রকাশ হয়। পরে উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত বছরের ১৭ নভেম্বর বার কাউন্সিলের এমসিকিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist