Beta
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

সাগরিকার গোলে ভারতকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

আফঈদা, সাগরিকাদের ভারতকে হারানোর আনন্দ। রবিবার কমলাপুর স্টেডিয়ামে। ছবি: বাফুফে।

নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষ। যোগ হওয়া সময়ের খেলা চলছে। যে কোনও মুহূর্তে বাঁশি বাজানোর অপেক্ষায় রেফারি। ম্যাচের নিয়তি যখন গোলশূন্য ড্র বলেই সবাই ধরে নিয়েছে ঠিক সেই মুহূর্তে গোল করল বাংলাদেশ।

রবিবার অনূর্ধ্ব-১৯ নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এই জয়ে ১ ম্যাচ হাতে রেখেই ফাইনালে বাংলাদেশে মেয়েরা। একমাত্র গোলটি করেছেন মোসাম্মৎ সাগরিকা।

আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি লিগের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভুটান। একই দিনের নেপাল ও ভারতের ম্যাচটি হয়ে দাঁড়িয়েছে অলিখিত সেমিফাইনাল।

টানা ২ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে সবার ওপরেই বাংলাদেশ। ১ জয় ও ১ হারে ভারত ও নেপালের পয়েন্ট ৩ করে।

ভারতের বিপক্ষে এ দিন ম্যাচের শুরুটা বেশ কঠিন ছিল বাংলাদেশের জন্য। আগের ম্যাচেই ভুটানকে ১০-০ গোলে বিধ্বস্ত করে যেন একটা বার্তা দিয়ে রাখে ভারত। এর ওপর এই ভারতীয় দলে খেলেছেন অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে খেলা চার ফুটবলার।

বিশেষ করে ভারতের ফরোয়ার্ড লাইনে খেলা নেহা, শিবানি দেবী, পূজা ও সুলঞ্জনা রাউলের গতির কাছে কোনোভাবেই পেরে উঠছিল না বাংলাদেশের ডিফেন্ডাররা। হোল্ডিং মিডফিল্ডে খেলা বাংলাদেশের উমেহ্লা সেভাবে বলই ধরে রাখতে পারছিলেন না। বলের যোগান দিতেও সমস্যা হচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত তাকে তুলে কোচ সাইফুল বারী রুমা আক্তারকে মাঠে নামান ৬৩ মিনিটে। এরপরই মাঠের খেলায় একটু একটু করে গতি বাড়তে থাকে বাংলাদেশের।  

সাধারণত বাংলাদেশের মেয়েরা যেভাবে বিল্ডআপ ফুটবল খেলে জায়গা বড় করার চেষ্টা করে, ভারতের বিপক্ষে তেমনটা না করে বারবারই বল হারিয়েছে। বন্যা তো মাঝে মধ্যে হাস্যকরভাবে কিছু বল তুলে দিয়েছেন ভারতীয়দের পায়ে।

প্রথমার্ধে আক্রমণের পর আক্রমণ সাজিয়েছে ভারতই। এমনকি সাগরিকা, আফঈদারা একটা কর্ণার পর্যন্ত আদায় করতে পারছিলেন না। বাংলাদেশ প্রথম কর্ণারটি পেয়েছে ম্যাচের ৩৯ মিনিটে। যদিও সেখান থেকে স্বপ্নার নেওয়া ফ্রি কিকে গোল হয়নি।  

সাগরিকার একমাত্র গোলেই অসাধারণ জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ছবি: বাফুফে।

৪৪ মিনিটে অবশ্য ভারত একটা ভালো সুযোগ পায়। নেহার শট দারুণ দক্ষতায় ধরে ফেলে বাংলাদেশের গোলরক্ষক স্বর্না রানী।

আর বিরতিতে যাওয়ার খানিক আগে বক্সের সামনে ফ্রি কিক পায় বাংলাদেশ। অসাধারণ রংধনু শট নেন আফঈদা। কিন্তু অল্পের জন্য বল যায় বার ঘেঁষে।

দ্বিতীয়ার্ধে একটা সময় মনে হচ্ছিল কিছুটা ক্লান্ত হয়ে পড়েছে ভারতের মেয়েরা। আসলে ওই সুযোগটাই নিয়েছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের সুবর্ণ সুযোগ এসেছিল ৮৬ মিনিটে। মুনকি আক্তার ভারতের গোলরক্ষক অনিকা দেবিকে সামনে পেয়েও বল মারেন গায়ে ।

একটা সময় বিল্ডআপ ফুটবলে মোটেও সফল হচ্ছিলেন না কোচ সাইফুল বারী, তখন খেলানোর চেষ্টা করেন লং বলে। সাগরিকার গোলটিও সেই আক্রমণেরই ফল।

মাঝমাঠ থেকে আফঈদা একটা চমৎকার লং বল ফেলেন। ওই বলটি ধরেই ভারতের দুই ডিফেন্ডারের ফাঁক গলে প্লেসিংয়ে সাগরিকা করেন কাঙ্খিত গোল।

মুহূর্তেই নেচে ওঠে গ্যালারি। বাংলাদেশের মেয়েরা ছুটে যান গ্যালারির দিকে। জয়ের আনন্দে ম্যাচ শেষে মাঠের চারপাশে ল্যাপ অব অনার দেন স্বর্ণা, সুরমা, বন্যারা।

এর আগে দিনের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ১-০ গোলে হারিয়েছে নেপাল।

বাংলাদেশ দল : স্বর্ণা, আফঈদা, জয়নব, সুরমা, মুনকি, স্বপ্না, সাগরিকা, পূজা (রিতু), উমেহ্লা (রুমা আক্তার), ইতি, বন্যা। 

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist