Beta
সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪

ভুটানের জালে বাংলাদেশের মেয়েদের আধা ডজন গোল

ভুটানকে ৬ গোলে হারানোর উল্লাস বাংলাদেশের মেয়েদের। শুক্রবার নেপালের আনফা কমপ্লেক্সে। ছবি: বাফুফে।
ভুটানকে ৬ গোলে হারানোর উল্লাস বাংলাদেশের মেয়েদের। শুক্রবার নেপালের আনফা কমপ্লেক্সে। ছবি: বাফুফে।

ভারতকে হারিয়ে অনূর্ধ্ব-১৬ নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে আগেই উঠেছিল বাংলাদেশ। শুক্রবার ভুটানের বিপক্ষে রাউন্ড রবিন লিগের শেষ ম্যাচটি তাই অর্পিতা বিশ্বাসদের কাছে ছিল শুধুই আনুষ্ঠানিকতার।

কিন্তু লিগ পর্বের শেষ ম্যাচেও দাপুটে জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। নেপালের আনফা কমপ্লেক্স মাঠে ভুটানকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছেন অর্পিতা, আলপিরা। জোড়া গোল করেছেন সুরভী আকন্দ প্রীতি। ১টি করে গোল করেছেন ফাতেমা আক্তার, ক্রানুচিং মারমা, সাথী মুন্ডা ও থুয়ে নুয়ে মারমা।

টুর্নামেন্টে ৫ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কারের দৌড়ে সবার আগে রইলো সুরভী। ৪ গোল করে সুরভীর ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন ভারতের আনুশকা কুমারী ও পার্ল ফারনান্দেজ।

টুর্নামেন্টে ৩ ম্যাচে সব কটিতেই জয়। ফেবারিট বাংলাদেশ ৯ পয়েন্ট নিয়ে পৌঁছে গেল ফাইনালে। ১০ মার্চ ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। যারা বৃহস্পতিবার নিজেদের শেষ ম্যাচে ১০-০ গোলে হারিয়েছে নেপালকে।

এই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে দুর্বল দল ভুটান। প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হজম করেছে ৭ গোল। এরপর নেপালের কাছে হার ৩ গোলে। অনুমিতভাবেই বাংলাদেশ জয় পেয়েছে এই ম্যাচে।

কিন্তু কত গোলের ব্যবধানে জেতে বাংলাদেশ সেটাই ছিল দেখার। প্রথম গোলটি পেতে বাংলাদেশকে যদিও বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি।

ভুটানের বিপক্ষে জোড়া গোল করেছেন সুরভী আকন্দ প্রীতি। শুক্রবার নেপালে। ছবি: বাফুফে।

১২ মিনিটে সবার আগে গোলের খাতা খোলেন সুরভী আকন্দ প্রীতি। মাঝ মাঠ থেকে ফাতেমার লং বল ধরে বক্সে ঢোকেন সুরভী। ভুটানের গোলরক্ষক কেলদান ওয়াংমো ওই সময় বক্স ছেড়ে এগিয়ে আসেন। সুরভীর হেড কেলদানের মাথার ওপর দিয়ে ঢোকে জালে (১-০)।

বাংলাদেশ দলের এই মেয়েদের রয়েছে আলাদা আলাদা প্রতিভা। এই ম্যাচে যেমন দেখা গেল ফাতেমার অসাধারণ কিছু স্কিল। নিঃসন্দেহে ম্যাচের সেরা ফুটবলারও তিনি। নিজে গোল করেছেন ১টি। করিয়েছেন ২টি।

বিশেষ করে ৩৪ মিনিটে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে যে সেট পিস থেকে গোলটি করেছেন ফাতেমা, সত্যিই সেটি চোখে লেগে থাকার মতো। ফাতেমার ফ্রি কিক ভুটানের গোলরক্ষক কেলদেনের মাথার ওপর দিয়ে যখন বাঁক নিয়ে জালে ঢুকলো,  সেটা চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া কিছু করারও ছিল না। এমন গোল সচারচর ইউরোপিয়ান ফুটবলে দেখা যায়! ৩৫ মিনিটে ফাতেমার কর্ণার থেকে প্লেসিংয়ে ক্রানুচিং করেন ৩-০।

বিরতির পর আরও আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছে বাংলাদেশ। সেটারই ফল পেয়েছে ৪৭ মিনটে। এবার সুরভীর বাড়িয়ে দেওয়া বলে সাথী মুন্ডা করেছেন ৪-০। আর ৬৯ মিনিটে থুয়ে নুয়ে মারমার দুর্দন্ত শট ঢোকে জালে (৫-০)। ৭৭ মিনিটে সুরভী আকন্দ প্রীতির আরেকটি দর্শনীয় গোলে স্কোরলাইন ৬-০ করে বাংলাদেশ। বক্সের বাইরে থেকে ৩ ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দারুণ ভাবে এই গোলচট করেন সুরভী।

অবশ্য বাকি সময়ে হ্যাটট্রিকের চেষ্টা করেছেন সুরভী। কিন্তু সেই চেষ্টা সফল হয়নি ময়মনসিংহের নান্দাইলের কিশোরীর।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist