Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

মালয়েশিয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বাংলাদেশিসহ নিহত ৩

নিহতদের কাছ থেকে অস্ত্রসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধারের কথা জানিয়েছে মালয়েশীয় পুলিশ। ছবি : দ্য স্টার
নিহতদের কাছ থেকে অস্ত্রসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধারের কথা জানিয়েছে মালয়েশীয় পুলিশ। ছবি : দ্য স্টার

মালয়েশিয়ার পাহাং রাজ্যের কুয়ান্তান শহরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক বাংলাদেশিসহ তিনজন নিহত হয়েছে।

স্থানীয় সময় সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পেকান-কুয়ান্তান বাইপাসে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে মালয়েশীয় পুলিশ।

মালয়েশিয়ার সংবাদমাধ্যম দ্য স্টারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বন্দুকযুদ্ধে নিহতরা দেশটির ‘সেন্ট্রো গ্যাং’-এর সদস্য বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এই গ্যাংয়ের সদস্যদের বিরুদ্ধে কয়েকটি জুয়েলারি দোকান থেকে ৪০ লাখের বেশি মালয়েশীয় রিঙ্গিত লুটে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

পুলিশ জানায়, পেকান-কুয়ানতান বাইপাসে বন্দুকযুদ্ধের পর গাড়ির ভেতরে তিনজনকে মৃত পাওয়া যায়। এদের মধ্যে দুইজন ভিয়েতনাম ও একজন বাংলাদেশের নাগরিক। তাদের মধ্যে ভিয়েতনামের দুই নাগরিকের বয়স যথাক্রমে ৩৬ ও ৪৪ বছর এবং বাংলাদেশির বয়স ৩৮ বছর।

পাহাং পুলিশ প্রধান কমিশনার দেতুক সেরি ইয়াহিয়া ওসমান এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গাড়ির আরোহীদের এর আগে পেকানের পাহাং রাজ্য উন্নয়ন বোর্ড এলাকায় দেখা গিয়েছিল এবং তাদের আচরণ ছিল সন্দেহজনক।

তিনি বলেন, পুলিশ গাড়ি থামানোর নির্দেশ দেয় কিন্তু চালক গাড়ির গতি বাড়িয়ে বাইপাসের দিকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তখন পুলিশের গাড়িও তাদের ধাওয়া করে। এক পর্যায়ে গাড়িটিকে থামানোর পর তাতে তল্লাশি চালাতে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়।

“তখন আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে গাড়িতে থাকা তিন আরোহীর সবাই নিহত হন,” বলেন পুলিশ কর্মকর্তা ওসমান।

তিনি জানান, পরে তল্লাশি করে নিহতদের কাছে একটি পিস্তল ও সাত রাউন্ড গুলি এবং তিনটি কেসিং পাওয়া যায়। এছাড়া গাড়িতে ড্রিল মেশিন, গ্রাইন্ডার, ধারালো অস্ত্র ও লোহার হাতুড়ি পাওয়া যায়। বন্দুকযুদ্ধে নিহত বাংলাদেশি ছিলেন গাড়িটির মালিক।

পুলিশ কমিশনার ওসমান আরও জানান, ভিয়েতনামের দুই নাগরিকের পাসপোর্ট রয়েছে এবং তারা ভিজিট ভিসায় মালয়েশিয়ায় ঢুকেছিলেন। নিহত বাংলাদেশির বিস্তারিত তথ্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist