Beta
সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪

বার্সেলোনার বিদায়ে শেষটাও কি দেখে নিলেন জাভি?

সান মামেস। আথলেতিক বিলবাওয়ের এই স্টেডিয়াম থেকে জিতে ফেরা ভীষণ কঠিন। নিজেরা জিততে না পারলেও প্রতিপক্ষকে জিততে না দেওয়ার মানসিকতা থাকে সবসময়। সেই মাঠে গিয়ে বার্সেলোনার সহজে পার পাওয়ার কথা নয়। কাতালান ক্লাবটি পারেওনি। বিলবাওয়ের কাছে হেরে বিদায় নিয়েছে কোপা দেল রে থেকে। তাতে কি বার্সেলোনায় নিজের শেষটাও দেখে নিলেন কোচ জাভি?

কাপ থেকে বিদায়

বুধবার রাতে কোপা দেল রে’র কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনাকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে বিলবাও। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচের প্রথম মিনিটেই এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। যদিও ২৬ মিনিটে রবার্ত লেভানদোভস্কি সমতায় ফেরানোর ছয় মিনিট পরই লামিনে ইয়ামাল জাল খুঁজে নিলে ২-১ গোলের লিড পায় কাতালানরা।

কিন্তু এগিয়ে থেকেও হার নিয়ে ফিরতে হয়েছে জাভির দলের। ৪৯ মিনিটে ওইহান সানসেটের গোলে বিলবাও সমতায় ফেরে। এরপর নির্ধারিত ৯০ মিনিট স্কোরলাইন থাকে ২-২। ফলে ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে গড়ালে সেখানে প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমের দ্বিতীয় মিনিটে ইনাকি উইলিয়ামসের গোলে এগিয়ে যায় বিলবাও। আর শেষ বাঁশি বাজার আগে আরেক উইলিয়ামস- নিকোর লক্ষ্যভেদে সেমিফাইনালে পৌঁছে যায় স্বাগতিকরা।

এ নিয়ে ঘরের মাঠে টানা ১২ ম্যাচ জিতল বিলবাও। শেষবার হেরেছিল গত আগস্টে, রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে। এবারের কোপা দেল রে’তে অঘটন চলছেই। রিয়াল মাদ্রিদের পর বার্সেলোনা- দুই জায়ান্ট বিদায় নেওয়ায় প্রতিযোগিতাটির উত্তেজনা অনেকটাই কমে গেল।

আশা শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগ

স্প্যানিশ ফুটবলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতা থেকে রিয়াল ছিটকে গেলেও লা লিগা জেতার দৌড়ে ভালোমতোই আছে। চ্যাম্পিয়নস লিগেরও তাদের পারফরম্যান্স দুর্দান্ত। কিন্তু বার্সেলোনা টিকে থাকল যে শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগে! লা লিগার হিসাব থেকে তারা কাটা পড়েনি। লিগের লম্বা রেসে যেকোনও কিছু ঘটতে পারে। তবে শীর্ষে থাকা জিরোনা থেকে ৮ পয়েন্ট ও দ্বিতীয় স্থানে থাকা রিয়াল থেকে ৭ পয়েন্টে পিছিয়ে থাকায় শিরোপা দৌড়ে অনেকটাই পিছিয়ে বার্সেলোনা।

এই অবস্থায় জাভির ওপর আরও বেশি চাপ তৈরি হলো। লা লিগায় পয়েন্ট খোয়ানো, চ্যাম্পিয়নস লিগের গড়পড়তা পারফরম্যান্স, স্প্যানিশ সুপার কাপে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে উড়ে যাওয়া- সব মিলিয়ে এমনিতেই প্রশ্নবোধক চিহ্ন পড়ে গিয়েছিল জাভির বার্সা ভবিষ্যতের পাশে। আর এখন কোপা দেল রে থেকে ছিটকে যাওয়ায় তার বার্সেলোনা অধ্যায় পড়ে গেছে আরও সংশয়ের মধ্যে।

জাভি নিজেই সরে যাবেন, যদি…

বিশেষ করে, স্প্যানিশ সুপার কাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়ালের বিপক্ষে পারফরম্যান্সে নড়বড়ে হয়ে যায় জাভির চেয়ার। ৯ মাসের মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে দুই ম্যাচে ৪টি করে গোল হজম করেছে বার্সেলোনা। জাভির আগে সবশেষ এই লজ্জায় পড়েছিলেন ফ্রাঙ্ক রাইকার্ড (২০০৫ ও ২০০৮)।

রিয়ালের কাছে বিধ্বস্ত হওয়ার পর তাই গুঞ্জন ওঠে চাকরি হারাচ্ছেন জাভি। যদিও কাতালান ক্লাবটির স্পোর্টিং ডিরেক্টর ডেকো বলেছিলেন, “কোনও কিছুই বদলাচ্ছে না। এটা স্রেফ একটা হার। এখনও সভাপতি (হোয়ান লাপোর্তা) ও ক্লাবের সবার আস্থা আছে কোচের ওপর।”

কিন্তু কোপা দেল থেকে বিদায়ের পরও কি ক্লাবের আস্থা থাকবে জাভির ওপর? জাভি নিজে কী বলছেন? বার্সেলোনার কিংবদন্তি মিডফিল্ডার স্পষ্টই জানিয়ে রাখলেন, “আমি আগেও বলেছি, মৌসুম শেষে যদি আমরা ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অবস্থানে থাকতে না পারি, তাহলে আমি সরে দাঁড়াব।”

লিওনেল মেসি নেই, ওদিকে আর্থিক ঝামেলায় জর্জরিত ক্লাব- এমন একটা সময় নতুন একটা দল গড়ে সাফল্যের খোঁজ শুরু জাভির। শুরুটাও হয়েছিল দারুণ। ২০২৩ সালের স্প্যানিশ সুপার কাপ জিতে নতুন অধ্যায়ের আভাস দেন তিনি। পরে জেতেন লা লিগাও। ধীরে ধীরে তার তরুণ দলটি পরিণত হয়। আশা বাড়তে থাকে কাতালান সমর্থকদের। কিন্তু চলতি মৌসুমে আবার খাদের কিনারায় বার্সেলোনা, সঙ্গে জাভিও!

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist