Beta
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

মহাগাঁটবন্ধন ছিঁড়ে নীতিশ আবার বিজেপির বন্ধনে

নীতিশ কুমার।
নীতিশ কুমার।

দুই বছর আগে আরজেডি, কংগ্রেস, বাম ফ্রন্টের সঙ্গে জোট গড়ে ভারতের বিহার রাজ্যে সরকার গঠন করেছিলেন সংযুক্ত জনতা দলের নীতিশ কুমার, কম আসন নিয়েও হন মুখ্যমন্ত্রী। জাতীয় নির্বাচনের আগে এখন পথ বদল করছেন তিনি।

এনডিটিভি জানিয়েছে, নীতিশ কুমার এখন বিজেপির সঙ্গে জোট বাঁধতে যাচ্ছেন এবং তার অংশ হিসেবে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন।

আর কয়েকমাস পরই ভারতে লোকসভা নির্বাচন। ক্ষমতাসীন বিজেপির বিরুদ্ধে কংগ্রেসসহ অন্য দলগুলো যে ইন্ডিয়া জোট গঠন করেছে, তার অন্যতম উদ্যোক্তা নীতিশ কুমার। ফলে তার এই পিঠটান বিজেপিবিরোধী জোটের জন্য বড় ধাক্কা হয়ে আসছে।

এনডিটিভি জানিয়েছে, রোববার মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার আগে নিজের দলের বিধান সভার সদস্যদের নিয়ে বৈঠকে বসেন নীতিশ কুমার।

রাজ্যপাল রাজেন্দ্র আরলেকারের হাতে পদত্যাগপত্র তুলে দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মহাগাঁটবন্ধনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন তিনি। সরকার ভেঙে দিতে রাজ্যপালকে অনুরোধ করেছেন।

মুখ্যমন্ত্রী পদে এ নিয়ে অষ্টম বার ইস্তফা দিলেন তিনি। তবে বর্তমান জোট ছেড়ে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের হয়ে পরবর্তী সরকার তিনিই গঠন করতে যাচ্ছেন।

নীতিশ কুমারের নতুন সরকারকে সমর্থন দিতে বিজেপি এরই মধ্যে তার দলীয় বিধান সভা সদস্যদের সমর্থন নিশ্চিত করেছে।

আসছে লোকসভায় এনডিএ জোটের হয়ে ভোটে লড়তে বিজেপি-সংযুক্ত জনতা দলের আসন সমঝোতাও হয়ে গেছে বলে খবর এসেছে।

২৪৩ সদস্যের বিহারের বিধান সভায় মোট আসন ২৪৩টি। সরকার গঠন করতে হলে ১২২ সদস্যের সমর্থন প্রয়োজন।

বর্তমানে রাজ্যটির বিধান সভায় সবচেয়ে বেশি আসন লালু প্রসাদ যাদবের দল রাষ্ট্রীয় জনতা দলের (আরজেডি), ৭৯টি। দলটির নেতৃত্ব এখন দিচ্ছেন লালুর ছেলে তেজস্বী যাদব।

আরজেডির পরে সবচেয়ে বেশি ৭৮টি আসন কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির। এরপরে রয়েছে নীতিশ কুমারের সংযুক্ত জনতা দল (৪৫), কংগ্রেস (১৯), সিপিআই-এমএল (১২), হিন্দুস্থান আওয়াম মোর্চা (৪), সিপিআই (২), সিপিএম (২)।

২০২২ সালে রাজ্যটিতে ভোটের পর একক দল হিসেবে কেউ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় বিজেপির এনডিএ জোট ছেড়ে আরজেডি নেতৃত্বাধীন মহাগাঁটবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন নীতিশ। বিনিময়ে তাকে মুখ্যমন্ত্রী করা হয়। এখন আবার নিজের পুরনো মিত্র বিজেপির সঙ্গে ভিড়ছেন তিনি।

এখন যদি বিজেপি ও সংযুক্ত জনতা দল এক হয়, তবে নীতিশের মুখ্যমন্ত্রী থেকে যাওয়ার কোনও বাধা থাকছে না। কারণ তাদের দুই দলের সম্মিলিত আসন সরকার গঠনের জন্য ন্যূনতম প্রয়োজনের ১২২ আসন ছাড়িয়ে যায়।

বিজেপি সূত্রের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানিয়েছে, তারা তো নীতিশকে সমর্থন দেবেই, তার সঙ্গে তাদের অন্য মিত্র হিন্দুস্থানি আওয়াম পার্টিও সমর্থন দেবে। তাতে সরকার গঠনের প্রশ্নে আর কোনও কিন্তু থাকবে না।

নীতিশ কুমারের বর্তমান জোট সরকারে আরজেডির মন্ত্রী রয়েছে। নতুন জোট গড়ে নতুন করে মুখ্যমন্ত্রিত্বের শপথ নিলে নতুন সরকারে বিজেপির মুখ দেখা যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

এদিকে আরজেডি এখনও হাল ছাড়তে চাইছে না। সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে তারা সরকার গঠনের আবেদন জানাতে পারলেও ১২২ আসনের সমর্থন নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে তাদের আটটি আসনের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। কারণ আরজেডি, কংগ্রেস, বাম ফ্রন্ট মিলিয়ে আসন হয় মোট ১১৪টি।

তেজস্বী যাদবও তার দলের বিধান সভার সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেছেন। “খেলা এখনও বাকি আছে”- সেই বৈঠকে তিনি এমনটাই বলেছেন বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist