Beta
শনিবার, ২ মার্চ, ২০২৪

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় যত বইমেলা

ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা। ছবি: ডয়চে ভেলে।

সভ্যতার বিকাশে বই অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। শুধু তথ্য ভান্ডার নয়, মানুষের বুদ্ধিবৃত্তিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সমৃদ্ধির অনুঘটকও বই। ইতিহাসের পাতায় সমৃদ্ধ অনেক গ্রন্থাগারের খবর পাওয়া যায়।

আধুনিককালে বইয়ের এই ভুমিকাকে আরও বাড়িয়েছে বইমেলা। জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রচার ও প্রসারের একটি গতিশীল মঞ্চ হিসেবে বইমেলা গুরুত্বপূর্ণ প্রভাবক হিসেবে কাজ করে।

সাহিত্যের প্রতি ভালোবাসা বাড়ানোসহ বিশ্ব সংস্কৃতি জানা-বোঝা, জীবন ও জগৎ সম্পর্কে বৃহত্তর জ্ঞানার্জনে বইমেলার ভূমিকা অনেক।

বিশ্বের কোথায় কোথায় এখনও সাড়ম্বরে বইমেলা হয়, আসুন তা জেনে নেই-

১.  ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা

বিশ্বের সবচেয়ে বড় বইমেলা জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা। বইয়ের আন্তর্জাতিক লেনদেন ও ব্যবসার জন্যও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মেলা এটি। এর বয়স ৫০০ বছরেরও বেশি। ১৪৬২ সালের আগে থেকে এর যাত্রা শুরু। এমনকি প্রিন্টিং মেশিন আবিষ্কারের আগে ১২ শতকের প্রথম দিক থেকে ফ্রাঙ্কফুর্টের সাধারণ বাণিজ্য মেলায় হাতে লেখা বই বিক্রি শুরু হয়। ইউরোপে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিকাশে এই বইমেলার ভুমিকা অপরিসীম।

১৭ শতকের শেষ পর্যন্ত ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা ইউরোপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বইমেলা ছিল। তবে ১৬৩২ সালে লাইপজিগ বইমেলার কাছে এটি গুরুত্ব হারায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৯ সালে সেন্ট পল চার্চে ফের ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে অবশ্য এটি তার শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছে।

২. লাইপজিগ বইমেলা

জার্মানির দ্বিতীয় বৃহত্তম বইমেলা লাইপজিগ বইমেলার যাত্রা শুরু হয় ১৫ শতকে। বইমেলাটির সাফল্যের পেছনে লাইপজিগ শহরে প্রকাশনা শিল্পের উত্থান বড় ভুমিকা রেখেছিল। এই শহরেই বিশ্বের প্রথম দৈনিক সংবাদপত্র প্রকাশিত হয়। লাইপজিগ বইমেলা ইউরোপীয় এনলাইটেনমেন্ট বা আলোকায়নের সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। ১৬৩২ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত এটি বিশ্বের শীর্ষ বইমেলা ছিল।

৩. লন্ডন বইমেলা

১৯৭৫ সালে প্রথমে ছোট পরিসরে যাত্রা শুরু করলেও লন্ডন বইমেলা বর্তমানে আন্তর্জাতিক উৎসবে রুপ নিয়েছে। প্রিন্ট, অডিও, ভিডিও এবং ডিজিটাল বইয়ের বিক্রয় কেন্দ্র হিসেবে এটি হয়ে উঠেছে সর্বাধুনিক এক মেলা। টিভি, সিনেমা ও ডিজিটাল চ্যানেলগুলোরও মিলনমেলা এটি। ফ্রাঙ্কফুর্টের পাশাপাশি লন্ডন বইমেলাকেও ইউরোপীয় বই বিক্রেতা, প্রকাশক ও মিডিয়ার জন্য তীর্থস্থান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

৪. কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অবাণিজ্যিক বইমেলা এটি। কারণ মেলাটি পাইকারি বই বাণিজ্যের জন্য নয়। প্রধানত সাধারণ পাঠকদের জন্য আয়োজন করা হয়। কলকাতা বইমেলা এশিয়ার সবচেয়ে বড় বইমেলা। ফ্রাঙ্কফুর্ট ও লন্ডন বইমেলার পরে এটি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম বার্ষিক বইয়ের সমাহার। এই বইমেলায় প্রায় ২০ লাখ পাঠক-ক্রেতার সমাগম হয় যা বিশ্বে সর্বোচ্চ। ১৯৭৬ সালে কলকাতা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার গিল্ডের উদ্যোগে শুরু হয় মেলাটি।

৫. নয়াদিল্লি ওয়ার্ল্ড বুক ফেয়ার

কলকাতা বইমেলার পর ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম বইমেলা এটি। এর যাত্রা শুরু হয় ১৯৭২ সালে। ভারত ইংরেজি প্রকাশনার তৃতীয় বৃহত্তম বাজার। যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ, ফ্রান্স, ইরান, ইসরায়েল, ইতালি, জাপান, কানাডা, মালয়েশিয়া, মরিশাস, নেপাল, পাকিস্তান, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, শ্রীলঙ্কা ও জার্মানিসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ১০ লাখ পাঠক-ক্রেতা নয়াদিল্লি বিশ্ব বইমেলায় অংশ নেন।

৬. বুকএক্সপো আমেরিকা

যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় এই বইমেলার যাত্রা শুরু হয় ১৯৪৭ সালে দেশটির রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে। প্রতিবছর দেশটির বড় বড় শহরগুলোতে পালাক্রমে চলে এই মেলা।

৭. গুয়াদালাজারা আন্তর্জাতিক বইমেলা

মেক্সিকোর সুন্দর শহর গুয়াদালাজারাতে আয়োজিত এই বইমেলাটি আমেরিকার সবচেয়ে বড় এবং বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বইমেলা। স্প্যানিশ ভাষাভাষীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হিসেবে বিবেচিত মেলাটি প্রকাশকদের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ।

৮. বোলোনিয়া শিশু বইমেলা

বিশ্বের প্রাচীনতম বিশ্ববিদ্যালয়ের শহর ইতালির বোলোনিয়ায় আয়োজিত এই বইমেলাটি শিশুদের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম বইমেলা। ১৯৬৩ সালে যাত্রা শুরু করা মেলাটি বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় শিশু বইমেলা।

৯. শারজাহ আন্তর্জাতিক বইমেলা

শারজাহ আন্তর্জাতিক বই মেলার মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্য বিশ্ব সাহিত্য মঞ্চে অবদান রাখে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহতে আয়োজিত এই মেলাটি এই অঞ্চলের বৃহত্তম সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও পরিণত হয়েছে। এটি আরবী সাহিত্য ও বিশ্ব সাহিত্যের মিলনমেলা হিসেবে সাংস্কৃতিক বোঝাপড়া এবং সংলাপেও উৎসাহ যোগায়।

১০. আবুধাবি আন্তর্জাতিক বইমেলা

ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলা ও আবুধাবি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য কর্তৃপক্ষের যৌথ উদ্যোগ আয়োজিত এই মেলাটি আরব ও বিদেশী প্রকাশনা এবং সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীগুলোর এক বিশাল মিলনমেলা।

১১. কায়রো আন্তর্জাতিক বইমেলা

আরবি প্রকাশনা জগতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট হিসেবে বিবেচিত এই মেলায় প্রতিবছর প্রায় ২০ লাখ পাঠক-ক্রেতার সমাগম হয়। এটি আরব বিশ্বের বৃহত্তম ও প্রাচীনতম বইমেলা।

১২. অমর একুশে বইমেলা

বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে এই মেলার আয়োজন করা হয়। মাসব্যাপী বাংলা ভাষা ও সাহিত্য উৎসব হিসেবে বিবেচিত এই মেলা বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক মিলনমেলাও। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে ঘিরে আয়োজিত এই মেলা বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতির প্রসারে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করে।

একুশে বই মেলা শুধু বই বিক্রির জন্য নয় বরং এটি একটি বহুমুখী সাংস্কৃতিক উৎসবও। বই প্রকাশ, কবিতা আবৃত্তি, সঙ্গীত পরিবেশনা এবং প্রখ্যাত লেখকদের সঙ্গে আলোচনাসহ অসংখ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় মেলায়।

এসব ছাড়াও বিশ্বের বৃহত্তম বইমেলাগুলোর মধ্যে আরও রয়েছে, ফ্রান্সের প্যারিস বইমেলা, রাশিয়ার মস্কো আন্তর্জাতিক বইমেলা, চীনের বেইজিং আন্তর্জাতিক বইমেলা, ইতালির তুরিন আন্তর্জাতিক বইমেলা, জাপানের টোকিও আন্তর্জাতিক বইমেলা, ব্রাজিলের সাওপাওলো আন্তর্জাতিক বইমেলা, আর্জেন্টিনার বুয়েনস আয়ার্স আন্তর্জাতিক বইমেলা, অস্ট্রেলিয়ার সিডনি আন্তর্জাতিক লেখক উৎসব ও তুরস্কের আন্তর্জাতিক বইমেলা।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist