Beta
সোমবার, ২০ মে, ২০২৪
Beta
সোমবার, ২০ মে, ২০২৪

সেঞ্চুরি দিয়ে হৃদয় জুড়ানো ব্যাটিং হৃদয়ের

WhatsApp Image 2024-02-09 at 21.43.05
Picture of ক্রীড়া প্রতিবেদক

ক্রীড়া প্রতিবেদক

দেশি ব্যাটারদের বিপিএলে রান না পাওয়া নিয়ে সমালোচনা ছিল। মিরপুরের উইকেটে রান না হওয়া নিয়েও কত কথা হয়েছে। তাওহিদ হৃদয় সবকিছুকেই বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখালেন সেঞ্চুরি করে। বিপিএল ইতিহাসে ষষ্ঠ বাংলাদেশি ব্যাটার হিসেবে করলেন সপ্তম সেঞ্চুরি। মিরপুরের উইকেটে তার অবিশ্বাস্য ইনিংসে দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে ৪ উইকেটে জিতল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

এদিন হৃদয় সত্যিই হৃদয় জুড়ানো ব্যাটিং করেছেন। চোখজুড়ানো সব শটে মাত্র ৫৬ বলে ৮ চার ও ৭ ছক্কায় করেছেন ১০৭ রান। ৫৩ বলে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি পূর্ণ  করেন হৃদয়। স্ট্রাইকরেট ১৯১।

পুরো ইনিংসে হৃদয়ের সব শটকেই আলাদা করে বিশ্লেষণ করা যায়। তবে ১৭তম ওভারে তাসকিন আহমেদের বলে এগিয়ে এসে কাভারের ওপর দিয়ে তুলে যে ছক্কা মারলেন তা এই ক্রিকেটারের প্রতিভাকে আলাদা করে।

এমনিতেও বাংলাদেশ ব্যাটারদের মাঝে একটু আলাদা হৃদয়। হাই ব্যাক লিফট ফুল স্পিড ব্যাটে দারুণ সব শট খেলেন। সেইসব শটের পসরা সাজিয়ে শুক্রবারকে নিজের করে নিলেন। যুব বিশ্বকাপ জয় থেকেই তাকে নিয়ে বাংলাদেশ দলের মিডলঅর্ডারে দুর্ভাবনা কাটানোর স্বপ্ন ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বিশ্লেষকদের। হৃদয় নিয়মিত পারফরম করে সেই আস্থার প্রতিদান দিয়ে চলেছেন।

২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে খুব ভালো করতে পারেননি। তবে বিশ্বকাপের আগে চরম ধারাবাহিক ছিলেন। তরুণ হিসেবে বিশ্বকাপের চাপটা হয়তো সামলে উঠতে পারেননি। বিপিএলে আবার নিজের পুরোনো চেহারায় ফিরলেন। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে দলের হয়ে ঝকঝকে ৪৭ রানের ইনিংস খেলেছেন।

এরপর কিছু ম্যাচে ছিলেন ব্যর্থ। তাতে চাপ বাড়ছিল। কালকের সেঞ্চুরিতে সব চাপ আছড়ে ফেললেন বাউন্ডারির বাইরে। এ পর্যন্ত ৫ জন দেশি সেঞ্চুরিয়ান দেখেছে বিপিএল। হৃদয় ষষ্ঠ বাংলাদেশি। তামিমের একার আছে দুটি। এছাড়া মোহাম্মদ আশরাফুল, শাহরিয়ার নাফিস, নাজমুল হোসেন শান্ত ও সাব্বির রহমানের আছে একটি করে সেঞ্চুরি। বিপিএলে মোট সেঞ্চুরি আছে ৩০টি।

শুক্রবারের ইনিংসের আগে টি-টোয়েন্টিতে হৃদয়ের সর্বোচ্চ ছিল ৮৫। সিলেটের হয়ে সবশেষ বিপিএলে ওই রান করেছিলেন। কালকের ইনিংসে নিজেকেই ছাড়িয়ে গেছেন।

তবে কুমিল্লার ইনিংসের শুরুতে ছিল বড় ধাক্কা। মাত্র ২৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যাচ্ছিল তারা। বড় স্কোরের পর দ্রুত উইকেট নিয়ে ঢাকা জয়ের স্বপ্ন দেখছিল। কিন্তু হৃদয়ের ব্যাটে স্বপ্ন ধীরে ফিরে হয়ে যায় তাসকিনদের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

দুর্দান্ত ঢাকা : ১৭৫/৪ (নাঈম ৬৪, সাইফ ৫৭, অ্যালেক্স ২১; ফোর্ড ৩/৩৫)।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স : ১৭৬/৬ (হৃদয় ১০৮, ব্রুক ৩৪; শরিফুল ২/৩২)।

ফল : কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৪ উইকেটে জয়ী। ম্যাচ সেরা : তাওহিদ হৃদয়।   

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত