Beta
রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০২৪
Beta
রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০২৪

টাইব্রেকারে হেরে ব্রাজিলের বিদায়

qw2
Picture of ক্রীড়া ডেস্ক

ক্রীড়া ডেস্ক

উরুগুয়ে ০ (৪) : ০ (২) ব্রাজিল

৭৪ বছর আগে বিশ্বকাপ ফাইনালে পরিণত হওয়া ম্যাচে উরুগুয়ের কাছে হেরেছিল ব্রাজিল। মারাকানা ট্র্যাজেডির সেই ম্যাচ দেখে হার্ট অ্যাটাক করে মারা গিয়েছিলেন অনেকে। ব্রাজিল নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপে ৭ গোল হজম করেছে জার্মানির কাছে। গত কোপার ফাইনালে মারাকানাতেই হেরেছে আর্জেন্টিনার কাছে।

তারপরও আজ কোপা আমেরিকায় উরুগুয়ের কাছে হারটাকে বলা হচ্ছে ব্রাজিলের ইতিহাসের অন্যতম খারাপ হারগুলোর একটি। এই ব্রাজিল যে লড়াই করতে পারেনি। প্রতিপক্ষ ১০ জনে পরিণত হওয়ার পরও গোল আদায় করতে পারেনি। তাদের আক্রমণগুলো ছিল এলোমেলো।

নির্ধারিত সময়ে গোলশুন্য ড্র’র পর টাইব্রেকারে তারা হেরেই গেছে ৪-২ ব্যবধানে। ১৫ বারের কোপাজয়ী উরুগুয়ে সেমিফাইনালে ২০১১ সালের পর। শেষ চারে তারা খেলবে কলম্বিয়ার বিপক্ষে। শেষ আটের অপর ম্যাচে কলম্বিয়া ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে পানামাকে।

কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ব্রাজিলের বিদায়ে আর্জেন্টিনার দৈনিক ওলের শিরোনাম, ‘‘ব্রাজিলের অন্যতম বাজে পারফরর্ম্যান্সের একটি’’। কোপা শুরুর আগে রোনালদিনহো মজা করে বলেছিলেন, ‘‘এই ব্রাজিলের কোনও ম্যাচ দেখবেন না।’’ সেটা নিয়েও ট্রল করেছে ওলে।

টাইব্রেকারে এদের মিলিতাওয়ের শট ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন উরুগুয়ের গোলররক্ষক সের্হিও রচেত। দগলাস লুইজ নিজের শট মারেন পোস্টে। উরুগুয়ের হোসে মারিয়া হিমেনেসের শট ব্রাজিলের গোলররক্ষক আলিসন বেকার ঠেকালেও যথেষ্ট ছিল না সেটা।

ম্যাচের ৯০ মিনিট জুড়ে শরীরনির্ভর ফুটবল খেলা উরুগুয়ে ফাউল করেছিল ২৬টি! তাতেই কি ফোকাসটা নষ্ট হয়ে যায় ব্রাজিলের! ২০ মিনিটেই ৯টি ফাউল করেছে তারা। প্রতিপক্ষ এভাবে খেললে ব্যক্তিগত নৈপুণ্যে ম্যাচ বের করে আনতেন ব্রাজিলের আগের প্রজন্ম। এই দলে তেমন কেউ কোথায়? ভিনিসিয়ুস জুনিয়র হয়তো ব্যবধান গড়ে দিতে পারতেন। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার জন্য তিনিও ছিলেন বেঞ্চে। এনদ্রিক, রোদ্রিগোরা চেষ্টা করলেও তাদের আক্রমণগুলো ভীতি ছড়াতে পারেনি।

প্রায় ৬০ শতাংশ বলের দখল রেখে খেলা ব্রাজিল পোস্টে ৭টি শট নিয়ে লক্ষ্যে রেখেছিল ৩টি। উরুগুয়ে ১২টি শট নিয়ে লক্ষ্যে রাখে কেবল ১টি। ২৭ মিনিটে ডি বক্সে এনদ্রিক বল পেলেও নিজে শট না নিয়ে দেন সতীর্থকে। উরুগুয়ের এক ডিফেন্ডার বিপদমুক্ত করেন সেই বল।

বিরতির আগে একবার উরুগুয়ের তিন ডিফেন্ডারকে পেছনে ফেলে দুর্দান্ত গতিতে এগিয়ে যাওয়া রাফিনিয়া বক্সে ঢুকে শট নিলেও কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন গোলরক্ষক রোচেত। উরুগুয়ের দারউইন নুনিয়েজ ৩৩ ও ৫২ মিনিটে দুটি সুযোগ নষ্ট করেন।

ব্রাজিল আক্রমণের ধার বাড়ালে উরুগুয়েও বাড়ায় ফাউলের মাত্রা। ৭১ মিনিটে রোদ্রিগোকে ট্যাকল করে শুরুতে হলুদ কার্ড দেখলেও ভিএআর লাল কার্ড দেন নাহিতান নানদেজকে। ১০ জন নিয়ে খেলেও বাকি সময়টা পোস্ট সুরক্ষিত রাখে মার্সেলো বিয়েলসার উরুগুয়ে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত