Beta
শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪

দিনাজপুরে বাসচাপায় ২ ভ্যানচালকসহ নিহত ৪

দুর্ঘটনার পর বিআরটিসির বাস ভাঙচুর করে স্থানীয়রা। ছবি : সকাল সন্ধ্যা

দিনাজপুরে বিআরটিসির একটি বাসের চাপায় দুই ভ্যানচালকসহ চারজন নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের চিরিরবন্দরের রাণীরবাজার সংলগ্ন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে আহত হয়েছে স্কুলছাত্রীসহ অন্তত ১০ জন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত দুইজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে এ দুর্ঘটনার পরপরই বিক্ষুদ্ধ জনতা মহাসড়কটি অবরোধ করে। এ কারণে আড়াই ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল।

নিহত চারজনের মধ্যে দুজনের বাড়ি দিনাজপুরে। তারা হলেন- দিনাজপুরের গোয়ালডিহি ইউনিয়নের বটতলী গ্রামের আজিম উদ্দিনের ছেলে ভ্যানচালক আব্দুল মজিদ (৫০) ও প্লান বাজার এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে মো. নজরুল ইসলাম নজু ইসলাম (৪০)।

নিহত অন্য দুইজন চাকমা সম্প্রদায়ের। তারা কক্সবাজার থেকে লবণ ও মধু বিক্রি করতে দিনাজপুর এসেছিলেন। তাদের একজন টেকনাফ উপজেলার হরিখোলা গ্রামের মংসু চাকমার ছেলে লতা ইয়া চাকমা (৫২), অপরজন একই এলাকার এমং চাকমার ছেলে সাইঙ্গো চাকমা (৪৫)।

গুরুতর আহত দুজনের মধ্যে একজন দশম শ্রেণির ছাত্রী বিথী রায়। তবে কোন স্কুলের শিক্ষার্থী সেটি এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানায়, দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা রংপুরগামী বিআরটিসির একটি বাস সকাল ৭টার দিকে রাণীরবন্দর বাজারে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যাটারিচালিত ভ্যান ও পথচারীদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই ভ্যানচালক ও দুই মধু বিক্রেতার মৃত্যু হয়। আহত হয় স্কুলছাত্রীসহ ১০ জন। দুর্ঘটনার পরপরই চালক ও তার সহকারী পালিয়ে যায়। এ কারণে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে স্থানীয়রা।

চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান জানান, দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা মহাসড়ক আটকে বিক্ষোভ শুরু করে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নুর আলমসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতারা সেখানে যান। তাদের আশ্বাসে আড়াই ঘণ্টা পর মহসড়ক ছাড়েন স্থানীয়রা।

ওসি আবুল হাসনাত আরও জানান, মরদেহ চারটি উদ্ধার করে স্থানীয় দুজনের মরদেহ পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজারের দুইজনের মরদেহ দশমাইল হাইওয়ে থানায় রয়েছে। বিআরটিসির বাসটি জব্দ করা হয়েছে। চালক ও তার সহকারীকে আটকের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist