Beta
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪
Beta
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪

সাক্ষাৎকার

আমরা আবার ঋণনির্ভর হয়ে পড়ছি

এবারের বাজেটে প্রয়োজন ছিল ওই লক্ষ্যের যার মাধ্যমে কীভাবে অর্থনীতিকে আগের জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। এরপর এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’র দিকে নিয়ে যাব।

আমরা আবার ঋণনির্ভর হয়ে পড়ছি

এবারের বাজেটে প্রয়োজন ছিল ওই লক্ষ্যের যার মাধ্যমে কীভাবে অর্থনীতিকে আগের জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। এরপর এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’র দিকে নিয়ে যাব।

পশ্চিমের মধ্যে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে

যদি কেউ পশ্চিমা দেশের সঙ্গে থাকে সে হয়ে যায় উদারতাবাদী। যদি সে না থাকে তাহলে তাকে কট্টর, কর্তৃত্ববাদী, রক্ষণশীল, একনায়তান্ত্রিক, ফ্যাসিবাদী এ ধরনের শব্দ দিয়ে তাদের আখ্যায়িত করা হয়।

অর্থনীতির নিয়ন্ত্রণ কিছু গোষ্ঠীর কাছে

আমরা দেখছি যে দেশে অসমতা বা বৈষম্য ক্রমাগত বেড়ে চলেছে এবং এটা দেখার জন্য বা বোঝার জন্য আপনার অর্থনীতিবিদ হওয়ার প্রয়োজন নেই— খালি চোখেই এটা দেখা যাচ্ছে।

সমাধান তো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জানা, নিচ্ছে না কেন

এগুলো কোনও সুদূরপ্রসারী নীতিমালা নয়। খেলাপি ঋণ কেন বাড়ে, সেই জায়গাতে দৃষ্টি নেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের। কেবল আদায়ের জন্য তোড়জোড় করলে কোনও লাভ হবে না।

কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংকের চেয়েও ভালো করছে

এই চার বছরে আমরা প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছি, যার খেলাপির হার শূন্য। স্বল্প মেয়াদি এই ঋণগুলো অনেক গ্রাহক দ্বিতীয়বার, তৃতীয়বারও গ্রহণ করেছে।

খেলাপি ঋণ আদায়ে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

আমরা দেখতে চেয়েছিলাম, ঋণ খেলাপি হওয়ার কারণে শাস্তি হচ্ছে, বিচার বিভাগ ঠিকভাবে তার কাজ করতে পারছে। টাকা নিয়ে সেটা ফেরত দিতে হয়— এই বিষয়টি প্রতিষ্ঠিত হতে হবে।

দেশে গণহত্যা নিয়ে বেশি কাজ হলে সেটাই হবে বড় স্বীকৃতি

বাংলাদেশের এমনি এমনি জন্ম হয়নি। এই ইতিহাস জানতে নতুন প্রজন্মের কাছে নিশ্চয়ই খুলনার এই গণহত্যা জাদুঘর চিরস্থায়ী অভিঘাতের সৃষ্টি করবে।

ভোক্তাদের প্রতিবাদী হতে হবে, সংগঠিত হতে হবে

সারাদেশে কর্মপরিধি বিস্তৃত করার অবশ্যই প্রয়োজন আছে এবং সুযোগ আছে। আমি মনে করি উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে ছড়িয়ে দিতে পারলে তারা আরও ভালোভাবে কাজ করতে পারবে।

আর কোন পোস্ট নেই

আমরা আবার ঋণনির্ভর হয়ে পড়ছি

এবারের বাজেটে প্রয়োজন ছিল ওই লক্ষ্যের যার মাধ্যমে কীভাবে অর্থনীতিকে আগের জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। এরপর এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’র দিকে নিয়ে যাব।

পশ্চিমের মধ্যে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে

যদি কেউ পশ্চিমা দেশের সঙ্গে থাকে সে হয়ে যায় উদারতাবাদী। যদি সে না থাকে তাহলে তাকে কট্টর, কর্তৃত্ববাদী, রক্ষণশীল, একনায়তান্ত্রিক, ফ্যাসিবাদী এ ধরনের শব্দ দিয়ে তাদের আখ্যায়িত করা হয়।

অর্থনীতির নিয়ন্ত্রণ কিছু গোষ্ঠীর কাছে

আমরা দেখছি যে দেশে অসমতা বা বৈষম্য ক্রমাগত বেড়ে চলেছে এবং এটা দেখার জন্য বা বোঝার জন্য আপনার অর্থনীতিবিদ হওয়ার প্রয়োজন নেই— খালি চোখেই এটা দেখা যাচ্ছে।

সমাধান তো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জানা, নিচ্ছে না কেন

এগুলো কোনও সুদূরপ্রসারী নীতিমালা নয়। খেলাপি ঋণ কেন বাড়ে, সেই জায়গাতে দৃষ্টি নেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের। কেবল আদায়ের জন্য তোড়জোড় করলে কোনও লাভ হবে না।

কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংকের চেয়েও ভালো করছে

এই চার বছরে আমরা প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছি, যার খেলাপির হার শূন্য। স্বল্প মেয়াদি এই ঋণগুলো অনেক গ্রাহক দ্বিতীয়বার, তৃতীয়বারও গ্রহণ করেছে।

আর কোন পোস্ট নেই

আমরা আবার ঋণনির্ভর হয়ে পড়ছি

এবারের বাজেটে প্রয়োজন ছিল ওই লক্ষ্যের যার মাধ্যমে কীভাবে অর্থনীতিকে আগের জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। এরপর এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’র দিকে নিয়ে যাব।

পশ্চিমের মধ্যে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে

যদি কেউ পশ্চিমা দেশের সঙ্গে থাকে সে হয়ে যায় উদারতাবাদী। যদি সে না থাকে তাহলে তাকে কট্টর, কর্তৃত্ববাদী, রক্ষণশীল, একনায়তান্ত্রিক, ফ্যাসিবাদী এ ধরনের শব্দ দিয়ে তাদের আখ্যায়িত করা হয়।

অর্থনীতির নিয়ন্ত্রণ কিছু গোষ্ঠীর কাছে

আমরা দেখছি যে দেশে অসমতা বা বৈষম্য ক্রমাগত বেড়ে চলেছে এবং এটা দেখার জন্য বা বোঝার জন্য আপনার অর্থনীতিবিদ হওয়ার প্রয়োজন নেই— খালি চোখেই এটা দেখা যাচ্ছে।

সমাধান তো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জানা, নিচ্ছে না কেন

এগুলো কোনও সুদূরপ্রসারী নীতিমালা নয়। খেলাপি ঋণ কেন বাড়ে, সেই জায়গাতে দৃষ্টি নেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের। কেবল আদায়ের জন্য তোড়জোড় করলে কোনও লাভ হবে না।

কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংকের চেয়েও ভালো করছে

এই চার বছরে আমরা প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছি, যার খেলাপির হার শূন্য। স্বল্প মেয়াদি এই ঋণগুলো অনেক গ্রাহক দ্বিতীয়বার, তৃতীয়বারও গ্রহণ করেছে।

আর কোন পোস্ট নেই