Beta
শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪

স্বামী বন্দি, আড়াল থেকে সামনে এলেন সুনীতা   

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের স্ত্রী সুনীতা কেজরিওয়াল শনিবার লাইভে হাজির হন।
দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের স্ত্রী সুনীতা কেজরিওয়াল শনিবার লাইভে হাজির হন।

সরকারি চাকরিতে ইস্তফা দেওয়ার পর পরিবার ও ঘর-সংসার নিয়েই ব্যস্ত ছিলেন সুনীতা কেজরিওয়াল। স্বামী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতো সক্রিয় রাজনীতিতে কখনও যুক্ত হননি। এভাবেই কাটিয়ে দিয়েছেন বছরের পর বছর।

এমনকি অরবিন্দ কেজরিওয়াল যখন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হন, তখনও সুনীতাকে কোনও রাজনৈতিক বক্তব্য দিতে দেখা যায়নি। কালেভদ্রে দেখা গেছে স্বামীর রাজনৈতিক প্রচারে।

রাজনীতির মাঠে লোকচক্ষুর প্রায় আড়ালে থাকা এই নারীকে এখন রাজনৈতিক বক্তব্য দিতে দেখা যাচ্ছে।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে বৃহস্পতিবার রাতে আবগারি নীতিসংক্রান্ত দুর্নীতি মামলায় গ্রেপ্তার করে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।                 

ইডির হেফাজতে থাকা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল শনিবার তার স্ত্রীর মাধ্যমে জনগণের উদ্দেশে লিখিত বার্তা পাঠান। সেই বার্তা পড়েন সুনীতা। 

বার্তায় আম আদমি পার্টির নেতা বলেছেন, তাকে দীর্ঘদিন বন্দি রাখা যাবে না। দিল্লির মানুষকে দেওয়া অঙ্গীকার পূরণে তাকে ফিরে আসতে হবে।             

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর লিখিত বার্তাটি তার সরকারি বাসভবনে পড়েন সুনীতা, যা আম আদমি পার্টির সোশাল মিডিয়া চ্যানেলে লাইভ করা হয়।

অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বরাতে তার স্ত্রী বলেন, যুদ্ধের বিরুদ্ধে লড়াই করতেই তার জন্ম। তাকে আগামীতে আরও বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। 

কেজরিওয়াল বলেন, “জেলের ভেতরে আছি না বাইরে আছি, সেটা বিষয় নয়। আমার জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত দেশের সেবায় উৎসর্গ করা। আমার রক্তের প্রতিটি বিন্দু আমি দেশের জন্য উৎসর্গ করেছি।”            

দিল্লির সরকারি বাসভবনের যে কক্ষ থেকে সুনীতা চিঠিটি পড়েছিলেন, সেই একই কক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ নিয়মিত ভার্চুয়ালি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতেন।         

ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপিকে তার গ্রেপ্তারের ঘটনায় ঘৃণা না করতে জনগণের প্রতি চিঠিতে আহ্বান জানান আম আদমি পার্টির নেতা কেজরিওয়াল।

চিঠিতে তিনি বলেন, “তারা (বিজেপি) আমাদের ভাই-বোন। কোনও জেল আপনাদের ভাই, আপনাদের ছেলেকে দীর্ঘদিন আটকে রাখতে পারবে না। আমি বের হয়ে আসব এবং প্রতিশ্রুতি পূরণ করব।”   

ভারতের ভেতরে-বাইরে ক্রিয়াশীল অনেক শক্তি দেশকে টেনে নামাতে চাইছে উল্লেখ করে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমাদের সবাইকে একযোগে ভারতকে মহান দেশে পরিণত করতে হবে। এই দেশকে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ও এক নম্বর দেশ হিসেবে গড়তে হবে। আমাদের সাবধান থাকতে হবে এবং দেশের ভেতরে-বাইরের ওইসব শক্তিকে চিহ্নিত করে তাদের দুর্বল করতে হবে, পরাজিত করতে হবে।”

অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও সুনীতা কেজরিওয়াল।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে নিয়ে যেমন দেশে-বিদেশে আলোচনা হচ্ছে, কারাগারে থাকা স্বামীর চিঠি জনসম্মুখে পড়ার পর সুনীতা কেজরিওয়ালও আলোচনার কেন্দ্রে চলে আসেন।

২০১৬ সালের জুলাইয়ে স্বেচ্ছায় অবসরে যান ইন্ডিয়ান রেভিনিউ সার্ভিসেসের (আইআরএস) ১৯৯৩ ব্যাচের কর্মকর্তা সুনীতা। দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিনি ভারতের আয়কর বিভাগে কর্মরত ছিলেন।

ভারতের ভোপাল শহরে এক প্রশিক্ষণ চলাকালে সুনীতার সঙ্গে পরিচয় হয় ১৯৯৫ ব্যাচের অরবিন্দ কেজরিওয়ালের। এর কয়েক বছর পর তারা বিয়ে করেন।

কেজরিওয়াল যখন আয়কর বিভাগের চাকরি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন, তখন তাতে পূর্ণ সমর্থন ছিল সুনীতার।

আয়কর বিভাগের চাকরি ছাড়ার পর কেজরিওয়ালের দুর্নীতি নির্মূলের আন্দোলনের সময় সুনীতা একদিকে যেমন তার কর্মজীবনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব কাঁধে নেন, অন্যদিকে দুই সন্তানের মায়ের দায়িত্বও পালন করেন। 

আম আদমি পার্টি গঠনের সময়ও স্ত্রী সুনীতাকে পাশে পেয়েছিলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। স্বামীর রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ না থাকলেও তার বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেন সুনীতা।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া     

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist