Beta
মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০২৪
Beta
মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০২৪

প্রাইম ব্যাংকের হয়ে তিনে খেললেন তামিম

তিনে নেমে সাব্বিরের সঙ্গে জুটি গড়ে দল জেতালেন তামিম। ছবি : প্রাইম ব্যাংক
তিনে নেমে সাব্বিরের সঙ্গে জুটি গড়ে দল জেতালেন তামিম। ছবি : প্রাইম ব্যাংক
Picture of ক্রীড়া প্রতিবেদক

ক্রীড়া প্রতিবেদক

গত ১৪ মার্চ ব্যাটিং অর্ডারের তিন নম্বরে খেলতে হয়েছিল তামিম ইকবালকে। লিগে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বাধ্য হয়ে প্রিয় ওপেনিং পজিশন ছেড়েছিলেন এই তারকা ব্যাটার। জ্যামের কারণে বিকেএসপিতে ম্যাচ শুরুর আগে পৌঁছতে পারেননি। তাই ইনিংসের শুরু করা হয়নি তামিমের।

শনিবার সেরকম কিছু হয়নি। তামিম স্বেচ্ছায় ওপেন করেননি। নেমেছেন তিন নম্বরে। ওয়ান ডাউনে নেমে অবশ্য গত তিন ম্যাচের মতো ফিফটি করা হয়নি তার। তবে দল জিতেছে সহজেই। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের দেয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্য ৫ উইকেট হারিয়ে ছুঁয়ে ফেলে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব।

বিকেএসপিতে তামিমের তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামা একটু বিস্ময় জাগানিয়া। এমন না যে ফর্ম ফিরে পাওয়ার জন্য ব্যাটিং পজিশন পরিবর্তন করেছেন। গত তিন ম্যাচে ওপেনিংয়ে নেমেই করেছিলেন টানা তিন ফিফটি।

তাছাড়া ওপেনিং পজিশন ছাড়তে বলাতেই বিশ্বকাপ খেললেন না তামিম। এরপর থেকে আর জাতীয় দলে খেলেননি। সেই বিতর্ক এখনও চলমান। এমন অবস্থায় স্বেচ্ছায় ওপেনিং পজিশন ছেড়ে দিলেন!

আরও বড় বিস্ময় তামিমকে পরে নামিয়ে পরিক্ষীত কোন ব্যাটারকে নামানো হয়নি। প্রাইম ব্যাংকের হয়ে ওপেন করেছেন লোয়ার অর্ডারে খেলা শেখ মেহেদি। পাওয়ার হিটার মেহেদিকে দিয়ে দ্রুত ম্যাচ শেষ করার চেষ্টা হতে পারে প্রাইমের। কিন্তু মেহেদির ৪১ বলে ১ চারে ১৬ রানের ইনিংসের পর সেই সম্ভাবনাও খাটছে না।  

যাই হোক, বড় কথা তামিমরা জিতেছেন। তার ৩৫, সাব্বির রহমানের ২৮, নাঈম ইসলামের ২৮ ও অলক কাপালির ২১ রানে প্রায় ১৫ ওভার হাতে রেখে লিগে চতুর্থ জয় তুলেছে প্রাইম। রূপগঞ্জের হয়ে ১৬৫ রানের পুঁজিতে সর্বোচ্চ ৫৫ করেছেন লেগ স্পিনার থেকে ব্যাটার হয়ে ওঠা আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

বিকেএসপির অপর মাঠে টানা সপ্তম জয় তুলেছে আবাহনী। এনামুল হক বিজয়ের সেঞ্চুরিতে এই জয় বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের। আগে ব্যাট করে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ২০৪ রানে অলআউট হয়। জবাবে ৩৯.২ ওভারে ৭ উইকেট হাতে রেখে ম্যাচ শেষ করে আবাহনী। বিজয় ১১৮ বলে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ১০৭ রানে অপরাজিত থাকেন। এছাড়া জাকের আলি ৭০ বলে ৫৮ রান করেন।

আবারও শেষ ওভারে জিতল মোহামেডান

এদিকে ফতুল্লায় আরও একটি রোমাঞ্চকর জয় তুললো মোহামেডান। গত ম্যাচে শেষ ওভারে শেষ উইকেটে জিতেছিল তারা। এবারও শেষ ওভারে জয় এসেছে শেখ জামাল ধানমন্ডী ক্লাবের বিপক্ষে ৫ রানে। আগে ব্যাট করে মাত্র ২০০ রানে আটকে যায় মোহামেডান। অপরাজিত ৮৪ রান করেও সাইফ হাসান জামালকে জেতাতে পারলেন না।

ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে আরও একবার মোহামেডানকে সম্মানজনক স্কোর এনে দেন আবু হায়দার রনি। ১৪৪ রানে সপ্তম উইকেট পড়ার পর একপ্রান্ত আগলে ৩৬ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৪৫ রানের ইনিংস খেলেন। জবাবে শেখ জামালের সাইফ হাসান ৮৪ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেও দলকে জেতাতে পারেননি।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য ১৩ রানের দরকার ছিল তাদের। গত ম্যাচে মোহামেডানকে শেষ ওভারে তিন চার হাঁকিয়ে জয় এনে দেয়া কামরুল ইসলাম রাব্বি শনিবারের ম্যাচে শেষ ওভার করতে এসে ৮ রান দিয়েছেন। সপ্তম ম্যাচে ষষ্ঠ জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় আবাহনীর পর দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে মোহামেডান।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত