Beta
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪
Beta
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪

সেবা দিন, প্রয়োজনীয় সব কিছুর ব্যবস্থা করব : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ছবি : সকাল সন্ধ্যা
বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ছবি : সকাল সন্ধ্যা
Picture of প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দিতে চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। বিপরীতে স্বাস্থ্যকর্মীরা যেন প্রাপ্য সুযোগ-সুবিধা পান, তা নিশ্চিত করার আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি।

শনিবার ঢাকার শাহবাগে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কনভেনশন হলে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। এবারে দিবসটির প্রতিপাদ্য, ‘স্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিতে, কাজ করি একসাথে’।

সামন্ত লাল সেন বলেন, “সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য স্বাস্থ্য নিশ্চিতে কাজ করছে। এজন্য দেশের প্রান্তিক অঞ্চল পর্যন্ত চিকিৎসা পৌঁছে দিতে হবে।”

চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা সঠিকভাবে কাজ করলে প্রান্তিক পর্যায় পর্যন্ত সেবা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব বলে মনে বরেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, “এজন্য আপনাদের যত রকম সুযোগ-সুবিধা প্রয়োজন তার ব্যবস্থা আমি করব। আপনারা আমাকে সেবা দিন, আমি প্রয়োজনীয় সব কিছুর ব্যবস্থা করব।”

এসময় দেশে স্বাস্থ্যখাতে প্রচুর স্থাপনা আর অবকাঠামো থাকলেও পর্যাপ্ত জনবল নেই বলে মত দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নূরুল হক।

তিনি বলেন, “স্বাস্থ্যখাতে প্রচুর স্থাপনা আর অবকাঠামো থাকলেও পর্যাপ্ত জনবল আর অর্থ নেই। যার ফলে দৃশ্যমান কোনও উন্নয়ন হচ্ছে না। তবে আমি বিশ্বাস করি লিডারশিপ ভালো হলে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব। আমি আশা করছি খুব দ্রুতই স্বাস্থ্য সেক্টরে একটি দর্শনীয় পরিবর্তন আসবে।”

স্বাস্থ্যখাতকে এগিয়ে নিতে সবাইকে প্রচুর কাজ করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “কাজ করতে হলে দক্ষ জনবল লাগবে। জনবলের ব্যবস্থা করতে গেলেই অর্থ লাগবে। অর্থ না থাকলে কিছুই হবে না।

“বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিবেদনেও অপর্যাপ্ত জনবলের কথা বলা হয়েছে। শুধু চিকিৎসক-নার্স দিয়েই স্বাস্থ্য সেবা দেওয়া সম্ভব হয় না, অথচ দেশে ৪০ শতাংশের মতো হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্টের পদ ফাঁকা।”

নিজের বক্তব্যে দেশে নকল ওষুধের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কথাও উল্লেখ করেন অধ্যাপক নূরুল হক। নকল ওষুধ তৈরি বন্ধে মনিটরিং জোরদারের কথাও বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আজিজুর রহমানসহ অন্যরা।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত