Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

‘হালাল’ ওটিটি আবার কী! 

Blue Mosque

ওটিটি প্ল্যাওটফর্মগুলোর মধ্যে নেটফ্লিক্সের নাম চলে আসে সবার আগে। বিশ্বায়নের এই যুগে ‘বৈশ্বিক’ মানবের রুচি এবং চাহিদা অনুযায়ী কন্টেন্ট তৈরিতে নেটফ্লিক্সের জুড়ি নেই। পশ্চিম থেকে পূবে নেটফ্লিক্স ভোক্তাদের চাহিদা পূরণ করে যাচ্ছে। 

তবে নেটফ্লিক্স মুসলিমদের জন্য আদৌ হালাল কিনা এই প্রশ্ন তুলেছে ইসলামি লাইফ স্টাইল ম্যাগাজিন হালালঅপ। 

ইসলামে হালাল এবং হারাম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই দুটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে আবর্তিত হয় একজন মুসলিমের জীবন। কিন্তু নেটফ্লিক্সে প্রদর্শিত বেশ কিছু সিরিজ ও সিনেমা ইসলামি জীবন বিধানের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়- এমন বলছে ম্যাগাজিনে প্রকাশিত একটি লেখা।  

“নেটফ্লিক্স দেখার ক্ষেত্রে মুসলিমদের কয়েকটি বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। একটি হলো কন্টেন্টের ভাষা, আর আরেকটি হলো নারী এবং পুরুষ চরিত্রদের পোশাক। অশোভন ঘনিষ্ঠতার দৃশ্য তো আছেই।”

‘ফাইভ নেটফ্লিক্স অল্টারনেটিভ ফর মুসলিম  টু ওয়াচ  হালাল টিভি শোস’ শিরোনামের ওই লেখায় বলা হয়েছে- ইসলাম আমাদের কথাবার্তায় বিনীত হতে বলে, কিন্তু নেটফ্লিক্স অশ্লীল ভাষা ও বক্তব্যকে উৎসাহ দেয়। নেটফ্লিক্সের কন্টেন্টগুলোতে ব্যবহৃত আবহ সংগীত আধুনিক মুসলিম পরিবারের মূল্যবোধের জন্য একটি বড় চিন্তার বিষয়।”

এই সমস্ত দিক বিবেচনা করে ইসলামি লাইফস্টাইল ম্যাগাজিনটি প্রস্তাব করছে কিছু বিকল্প ওটিটি প্ল্যাটফর্ম। যেগুলোর কন্টেন্ট তৈরি হয় ইসলামি মূল্যবোধ বিবেচনা করে। 

জেনে নেওয়া যাক তেমন কিছু ‘হালাল’ প্ল্যাটফর্ম যেগুলো হতে পারে নেটফ্লিক্সের বিকল্প-

আলকিমিয়া (Alchemiya)  

আলকিমিয়া ব্রিটেন ভিত্তিক একটি জনপ্রিয় স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম। এই প্ল্যাটফর্ম আধুনিক মুসলিম পরিবারের সকল চাহিদা পূরণ করতে পারে এমন দাবী করছে হালালঅপ। প্ল্যাটফর্মটিতে রয়েছে বৈচিত্রময় বহু কনটেন্ট যা দর্শকদের বিনোদন প্রদানের পাশাপাশি ইসলামী মূল্যবোধেকে উৎসাহিত করে। আলকিমিয়াকে বলা হয় ‘মুসলিম নেটফ্লিক্স’। প্ল্যাটফর্মটির কন্টেন্টের নির্মাতারাও মুসলিম।

হালালঅপ সূত্রে জানা যায়, আলকিমিয়ার লক্ষ্য শুধুমাত্র মুসলিমদের সম্পর্কে গৎবাঁধা ধারণা ভুল প্রমাণ করাই নয়, বরং বিশ্বকে ইসলাম এবং পশ্চিমা মূল্যবোধের পার্থক্য সম্পর্কে সঠিক ধারণা দেওয়া। তাই মুসলিম পরিচালক এবং প্রযোজক সংশ্লিষ্ট কনটেন্টগুলোই তারা পারাধান্য দিয়ে থাকে। ইসলামি জীবনবোধ সম্পর্কে সঠিক ধারণা নেই এমন পরিচালক এবং প্রযোজকের কন্টেন্ট তারা এড়িয়ে চলে। 

আলকিমিয়া তাদের বেশিরভাগ কন্টেন্ট ইংরেজি ভাষায় স্ট্রিম করে। সারাবিশ্বের মুসলিম দেশ থেকে তারা কন্টেন্ট সংগ্রহ করে থাকে। যদিও আলকিমিয়ার নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা রয়েছে। যেখানে ইসলামী চলচ্চিত্র, শর্ট ফিল্ম এবং ডকুমেন্টারি নির্মান করা হয়।

আলকিমিয়াতে বর্তমানে স্ট্রিমিং হচ্ছে ‘দ্য ইমাম আহমাদ বিন হানবাল’, ‘হারুন আল রশিদ’ এবং ‘ইন্সপিরেশন’ এর মতো ড্রামা সিরিজ।

সারাবিশ্বের প্রায় ৯ কোটি মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ফোন অপারেটর কোম্পানির সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে আলকিমিয়ার প্রযোজিত কনটেন্ট প্রদর্শিত হয়। আমাজন প্রাইম প্লাটফর্ম থেকেও আলকিমিয়ার কন্টেন্ট দেখা যায়। বাংলাদেশে আলকিমিয়া সাবস্ক্রাইব করতে এর ফি দিতে হবে মাসপ্রতি ১৮০ টাকা করে। তবে কেউ যদি এক বছরের সাবস্ক্রিপশন নেয় তাকে গুণতে হবে ১ হাজার ৮০০টাকা। 

দুরিও+ (Durio+)

কী দেখবে শিশুরা? যখন এই প্রশ্ন চলে আসে, তখন নেটফ্লিক্স বিপদজনক। এমনটাই মনে করে হালালঅপ।

পত্রিকাটি বলছে, দুরিও প্লাস হলো একটি অ্যানিমেশন প্ল্যাটফর্ম যা ইসলামী মূল্যবোধকে গুরুত্ব দিয়ে কার্টুন, অ্যানিমেশন তৈরি করে থাকে। হালালঅপের দাবি সন্তানদের ইসলামের বিভিন্ন দিক শেখানো এবং উৎসাহিত করার জন্য প্ল্যাটফর্মটি দারুণ। এই প্ল্যাটফর্মে শিশুরা বিভিন্ন অ্যানিমেশন স্টোরির মাধ্যমে বিনোদন পাওয়ার পাশাপাশি  ইসলামের মূল বিষয়গুলি সম্পর্কে অবগত হয়। কার্টুন ছাড়াও, দুরিও প্লাস বাচ্চাদের জন্য বাস্তবধর্মী গেম শো প্রযোজনা করে, যা শিশুদের কৌতূহলী ও চিন্তাশীল মন বিকাশে সাহায্য করে।  

এছাড়াও নেটফ্লিক্সের বিকল্প হিসেবে হালালঅপ মুসলিমকিডস.টিভি (MuslimKids.Tv) এবং নুরফ্লিক্সের (Nurflix) নামও প্রস্তাব করেছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist