Beta
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বেও মুসল্লিদের ঢল

কড়া নিরাপত্তা ও প্রশাসনিক প্রস্তুতির মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে এবারের পর্বেও অংশ নিয়েছেন অনেক মুসল্লি।

বর্তমানে প্রায় ৫৪টি দেশের ৬ হাজার ৩৬ জন বিদেশি মুসল্লি ময়দানে অবস্থান করছেন। বিদেশি মুসল্লিদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

শুক্রবার দ্বিতীয় পর্বের লাখো মুসল্লিদের অংশগ্রহণে দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে জুমার জামাত শুরু হয়। জুমার নামাজে ইমামতি করেন দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজের মাওলানা সা’দের বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্দলভী।

কাকরাইল মসজিদের শুরা সদস্য মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলামের ছেলে মুফতি ওসামা ইসলাম ও মিডিয়া সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সায়েম জানান, ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী মুসল্লি ছাড়াও শুক্রবার জুমার নামাজে অংশ নিতে সকাল থেকেই ঢাকা ও গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকার লাখ লাখ মুসল্লি ইজতেমা ময়দানে হাজির হন।

দুপুর ১২টার দিকে ইজতেমা মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে উঠে। এছাড়া টঙ্গীর বিভিন্ন উঁচু ভবনের ছাদে থেকেও মুসল্লিরা জুমার নামাজে শরিক হন। বাস-ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে মুসল্লিরা ইজতেমা মাঠের দিকে ছুটে আসেন জুমার নামাজ আদায় করার জন্য।

বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক বিষয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) কমিশনার মো. মাহবুবুর রহমান বলেন,  সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ইজতেমার প্রথম পর্ব সম্পন্ন করেছি। দ্বিতীয় পর্ব ভালোভাবে সম্পন্ন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা-ব্যবস্থা রয়েছে।

এর আগে গত ২ ও ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হওয়া প্রথম পর্বের ইজতেমায় অংশ নেন বাংলাদেশের মাওলানা জুবায়েরের অনুসারীরা। ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেন ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বি দিল্লির মাওলানা সা’দ কান্দলভির অনুসারীরা। শুক্রবার শুরু হওয়া তিন দিনব্যাপী ইজতেমা আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে আগামী রবিবার।

২০১৮ সালের বিরোধের পর দুই পক্ষ ২০১৯ ও ২০২০ সালেও আলাদাভাবে ইজতেমা করে। এরপর করোনাভাইরাসের কারণে দুই বছর বন্ধ ছিল এই জমায়েত।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist