Beta
মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪
Beta
মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪

হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসি

ইব্রাহিম রাইসি। ফাইল ছবি/এপি
ইব্রাহিম রাইসি। ফাইল ছবি/এপি
Picture of সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের পাহাড়ি এলাকায় বরফ শীতল আবহাওয়ায় হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও তার সফর সঙ্গীদের কেউ বেঁচে নেই।

সোমবার ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম ইরনার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ইরানের সরকারের পক্ষ থেকে শিগগিরই আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে ইরনার প্রতিবেদনে।

স্থানীয় সময় রবিবার বিকালের দিকে পূর্ব আজারবাইজান ও ইরান সীমান্তবর্তী পাহাড়ি এলাকায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তাকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি। সেখানে ভারি বৃষ্টি ও ঘন কুয়াশার কারণে ১৫ ফুটের বেশি দূরত্বেও কিছু দেখা যাচ্ছিল না।

তেহরান টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের জলফা ও ভার্জাঘানের মাঝে অবস্থিত সুঙ্গুন নামের তামা খনির কাছে রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়। স্থানটি ইরানের অন্যতম বড় শহর তাবরিজ থেকে প্রায় ৭০-১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

রবিবার বিকাল থেকে ৪০টি পৃথক দল উদ্ধার তৎপরতায় যোগ দেয়। তবে পাহাড়ি এলাকাটিতে বৈরী আবহাওয়ার কারণে উদ্ধারকারী দলগুলো কেবল স্থলপথে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছতে সক্ষম হয়।

বিধ্বস্ত হওয়া হেলিকপ্টারে ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির সঙ্গে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আবদুল্লাহিয়ান, পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের গভর্নর মালেক রাহমাতি ও এই প্রদেশে ইরানের সর্বোচ্চ নেতার মুখপাত্র আয়াতুল্লাহ মোহাম্মদ আলী আলে-হাশেমসহ ৯ জন ছিলেন।

রবিবার আজারবাইজানের সীমান্তবর্তী এলাকায় দুই দেশের যৌথভাবে নির্মিত একটি বাঁধ উদ্বোধন করতে সেখানে যান ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভও সেখানে ছিলেন।

সেখান থেকে তিনটি হেলিকপ্টারের বহর নিয়ে ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের রাজধানী তাবরিজে ফিরছিলেন ইব্রাহিম রাইসি ও তার সঙ্গে থাকা অন্য কর্মকর্তারা। প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হলেও বাকি দুটি হেলিকপ্টার নিরাপদেই গন্তব্যে পৌঁছায়।

তাবরিজ অটোমোবাইল, মেশিন টুলস, শোধনাগার, পেট্রোকেমিক্যাল, টেক্সটাইল ও সিমেন্ট উৎপাদন শিল্পের জন্য একটি প্রধান ভারি শিল্পকেন্দ্র। শহরটি তার হস্তশিল্পের জন্য বিখ্যাত, যার মধ্যে হাতে বোনা রাগ ও গয়না রয়েছে ।

ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের পাহাড়ি এলাকায় বরফ শীতল আবহাওয়ায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি। ছবি : পার্স টুডে

ইরনার খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট রাইসি যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি বেল ২১২ মডেলের একটি হেলিকপ্টারে ভ্রমণ করছিলেন।

দেশটির রেড ক্রিসেন্টের প্রধান পীর-হোসেন কোলিভান্দ ইরান ইন্টারন্যাশনাল টিভিকে বলেছেন, রাইসি ও অন্যদের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তাবরিজে। অনুসন্ধান অভিযান শেষ হয়েছে।

৬৩ বছর বয়সী রাইসি ছিলেন ইরানের অষ্টম প্রেসিডেন্ট। দ্বিতীয় দফার চেষ্টায় ২০২১ সালে তিনি ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তাকে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ আলী খামেনির সম্ভাব্য উত্তরসূরি মনে করা হতো।

ইরানের পররাষ্ট্র নীতি ও পারমাণবিক কর্মসূচির বিষয়ে চূড়ান্ত ক্ষমতার অধিকারী দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি দেশের নাগরিকদের আশ্বস্ত করে বলেছেন, (প্রেসিডেন্টের অবর্তমানে) রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম পরিচালনায় কোনও ব্যাঘাত ঘটবে না।

প্রেসিডেন্টের মৃত্যু হওয়ায় ইরানের সংবিধান অনুযায়ী দেশটির সর্বোচ্চ নেতার অনুমোদনক্রম প্রেসিডেন্টের দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট। এরপর ভাইস প্রেসিডেন্ট, পার্লামেন্ট স্পিকার ও বিচার বিভাগের প্রধানের সমন্বয়ে গঠিত পরিষদ পরবর্তী ৫০ দিনের মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ব্যবস্থা করবে।

পার্স টুডের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রবিবার হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার খবর প্রচারিত হওয়ার পরপরই ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ মোখবেরের সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক হয়।

সর্বোচ্চ নেতা অনুমোদন করলে ভইস প্রেসিডেন্ট মোখাবের আগামী ৫০ দিনের জন্য প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করবেন। এরপর রাষ্ট্রের দায়িত্বভার চলে যাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের হাতে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত