Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

রুদ্ধশ্বাস জয়টা ম্যানইউর আত্মবিশ্বাসের জ্বালানি

১২১তম মিনিটে গোলের পর দিয়ালো। ছবি : এক্স
১২১তম মিনিটে গোলের পর দিয়ালো। ছবি : এক্স

রুদ্ধশ্বাস এক থ্রিলই হল ওল্ড ট্রাফোর্ডে। বারবার বাঁকবদলের সেই ম্যাচে ৪-৩ গোলে লিভারপুলকে হারিয়ে এফএ কাপের সেমিফাইনালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তাতে সম্ভাব্য সব শিরোপা জিতে ক্লপকে বিদায়ী উপহার দেওয়া হল না মো সালাহদের।

রোলার কোস্টারের মত ম্যাচে নির্ধারিত ৯০ মিনিট শেষে সমতা ছিল ২-২। অতিরিক্ত সময়েও সমতা ৩-৩। তখনই শুরু  ‘ফার্গি টাইম’। অতিরিক্ত সময়ে অসাধারণ সব জয় এনে দেওয়ায় সাবেক কিংবদন্তী কোচ স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের সঙ্গে মিলিয়ে ভক্তরা দিয়েছিলেন এমন নাম।

এবার সেই ‘ফার্গি টাইমে’র নায়ক অখ্যাত আইভরিকোস্টের তরুণ আমাদ দিয়ালো। ১২১তম মিনিটে বল পেয়ে ছুটতে থাকেন আলেহান্দ্রো গারনাচো। কনোর ব্রাডলি বাধা এড়িয়ে গারনাচো বল বাড়ান  বাঁ দিকে থাকা দিয়ালোকে।

বক্সে ঢোকার পরেই বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে গোলকিপার কেলেহারকে ফাঁকি দেন এই মৌসুমে কেবল চতুর্থ ম্যাচ খেলা দিয়ালো। লাল সমুদ্রে পরিণত হওয়া গ্যালারিতে উঠে উৎসবের ঢেউ।

গোলের আনন্দে জার্সি খুলে হলুদ কার্ড দেখেন দিয়ালো। এর কিছুক্ষণ আগে ভার্জিল ফন ডাইককে দ্রুত ফ্রি কিক নিতে বাধা দিয়ে দেখেছিলেন আরেক হলুদ কার্ড। লাল কার্ড হওয়ায় মাঠ ছাড়তে হয় তাকে। এরপরও সমর্থকরা যেভাবে অভিবাদন জানিয়েছেন, তাতে লাল কার্ড ভুলে যাওয়ার কথা তার।

২০২১ সালে ইউনাইটেডে যোগ দিলেও বেশিরভাগ সময় রেঞ্জার্স ও সান্ডারল্যান্ডে ধারে খেলে কাটিয়েছেন দিয়ালো। দীর্ঘ দিন হাঁটুর চোটে ভোগা এই তরুণ ম্যাচটা খেলেছেন রোজা রেখে। ম্যাচ শেষে বললেন,‘‘রোজা রেখেছি মহান আল্লাহর জন্য। আমার পেটে ক্ষুধা ছিল আর পায়ে গোলের ক্ষুধা। এই গোলে মিটেছে সেটা।’’

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানইউ-লিভারপুল ম্যাচ সবচেয়ে আকর্ষণীয় ছিল একটা সময়। সেই লড়াই একপেশে করে লিভারপুল গত তিন মৌসুমে জিতেছিল ৭-০, ৫-০, ৪-০ গোলে। তবে এবার মধুর প্রতিশোধই নিল এরিক টেন হাগের দল। এই জয়টা তার কাছে আত্মবিশ্বাসের জ্বালানি, ‘‘আপনি যদি লিভারপুলকে হারাতে পারেন, তাহলে সবাইকে হারাতে পারবেন। এই আত্মবিশ্বাস পেয়ে গেছে দল। এটা আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোর সেই মুহুর্ত হতে পারে।’’

দশম মিনিটে স্কট ম্যাকটমিনের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল ম্যানইউ।  ৪৪ মিনিটে অ্যালেক্সিস ম্যাক অ্যালিস্টার সমতা ফেরানোর পর বিরতির ঠিক আগে লিভারপুলকে এগিয়ে দেন মো সালাহ। ৮৭ মিনিটে আন্তোনির গোলে ম্যানইউ ফেরায় সমতা ।

যোগ করা সময়ে লিভারপুল গোলকিপার কুইভিন কেলেহারকে একা পেয়েও মার্কাস রাশফোর্ড অবিশ্বাস্য মিস করলে ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। ১০৫ মিনিটে হার্ভি এলিয়টের গোলে ৩–২ ব্যবধানে এগিয়ে যায় লিভারপুল। ১১২ মিনিটে রাশফোর্ড-এর গোলে আবারও সমতা ফেরায় ম্যানইউ। এরপরই দিয়ালোর নায়ক হয়ে ওঠার গল্প আর ম্যাচের রুদ্ধশ্বাস সমাপ্তি।

সেমিফাইনালের ড্রতে ম্যানইউ পেয়েছে আসরের চমক কভেন্ট্রি সিটিকে। আরেক ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি খেলবে চেলসির বিপক্ষে। দুটিই ম্যাচই হবে ২০ এপ্রিল।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist