Beta
শনিবার, ২ মার্চ, ২০২৪

ঢিলের পর তার : মেট্রোরেলের নিরাপত্তার ঝুঁকি এড়াতে পদক্ষেপ কী

ঢাকার পল্টন এলাকায় মেট্রোরেলের লাইনের উপর দিয়ে একটি তার ঝুলতে দেখা যাচ্ছে।

একটি ছেঁড়া তারের পতন কিছু সময়ের জন্য থমকে দিয়েছিল ঢাকার মেট্রোরেলের গতি। সেই সমস্যা কাটিয়ে উঠলেও এখনও মেট্রোরেলের লাইনের উপরে তার দেখা যাচ্ছে। ফলে আবার একই সমস্যা দেখা দেওয়ার ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে।

এর আগে মেট্রোরেলে ঢিল ছোড়ার ঘটনা ঘটেছিল। তাতে কাচে ধরেছিল চিড়। তার কোনও সুরাহা না হতেই এবার তার ছিঁড়ে পড়ার ঘটনা ঘটল।

এতে এই গণপরিবহনের নিরাপত্তার বন্দোবস্তু নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মেট্রোরেলের নিরাপত্তার জন্য এমআরটি পুলিশ গঠন করা হলেও ২১ কিলোমিটার পথে শুধু স্টেশনগুলোতে তাদের তৎপরতা দেখা যায়।

লাইনের ওপরে যে কোনও দুর্ঘটনা এড়াতে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে ভাবতে হবে বলে মনে করেন বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক কাজী মো. সাইফুন নেওয়াজ।

যা ঘটেছিল

বিদ্যুৎচালিত মেট্রোরেলে বিদ্যুতের লাইনটি গেছে লাইনের ঠিক ওপর দিয়ে। উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পুরো লাইনের ওপরে রয়েছে বিদ্যুতের তার।

মঙ্গলবার কারওয়ান বাজার থেকে শাহবাগের মাঝামাঝিতে লাইনের বৈদ্যুতিক তারের ওপর কে বা কারা টিভি কিংবা ইন্টারনেটের তার পড়লে প্রায় ১০-১৫ মিনিট বন্ধ থাকে ট্রেন চলাচল।

মে‌ট্রো‌রে‌ল পরিচালনার দা‌য়ি‌ত্বে থাকা সরকা‌রি কোম্পা‌নি ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “কোনও দুষ্ট লোক বা কোনও দুর্বৃত্ত নিচে থেকে বা ওপর থেকে মেট্রোরেলে লাইনের ওপরে তার ছুড়ে মারে। সে জন্য কিছুটা বিঘ্ন সৃষ্টি হয়।”

এই কারণে ১০-১৫ মিনিট মেট্রোরেল চলাচলে সমস্যা হয়েছিল বলে জানান তিনি। যদিও যাত্রীরা বলছেন, প্রায় আধা ঘণ্টা তাদের ট্রেনের অপেক্ষায় থাকতে হয়েছিল।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ওই সময় মে‌ট্রো‌রে‌লের সব স্টেশনে ভিড়। হাজার হাজার যাত্রী ছিলেন ট্রেনের অপেক্ষায় যাত্রীর।

যানজটের নগরী ঢাকায় এক বছর আগে গণপরিবহনে মেট্রোরেল যুক্ত হওয়ার পর অফিসগামীসহ অন্যদের চলাচল হয়েছে অনেক সহজ, বেঁচে যাচ্ছে সময়। তাই ভিড় লেগেই থাকে।

মেট্রোরেল বন্ধের সময় স্টেশনগুলোতে ছিল এমন ভিড়। ছবি: হারুন অর রশীদ

আগে যা ঘটেছিল

গত বছরের ৩০ এপ্রিল দুপুরে মেট্রোরেলে ঢিল ছোড়ার ঘটনাটি ঘটে। তাতে কাচে চিড় ধরে ১০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয়ের আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ।

সেই মামলার তদন্তে কাজীপাড়া মেট্রো স্টেশনের পূর্ব পাশের একাধিক সিটি ক্যামেরার ভিডিও সংগ্রহ করে বিশ্লেষণ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে অর্ধশত স্থানীয় বাসিন্দাদের।

তবে কোনো কূল-কিনারা হয়নি, দায়ীদের শনাক্ত করাও সম্ভবপর হয়নি।

সে বিষয়ে জানতে চাইলে এমআরটি পুলিশের জনসংযোগ কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহমুদ খান মঙ্গলবার সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “এটি আমাদের সদর দপ্তর থেকে দেখা হচ্ছে। যতটুকু জানি, এই মামলা তদন্তাধীন।”

নিরাপত্তার দায়িত্ব যাদের

মেট্রোরেল ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ম্যাস র‍্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) পুলিশ ইউনিট গঠন করা হয়েছে। এটি সরাসরি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে পরিচালিত হয়।

এমআরটি পুলিশের সদস্যরা জানান, তারা শুধু স্টেশনগুলোতে দায়িত্ব পালন করেন। এখন পর্যন্ত ট্রেনেও তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়নি।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে এমআরটি পুলিশের এক এএসআই সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “ট্রেনের ভেতরে যাত্রীদের কোনও ধরনের সমস্যা হলে পরবর্তী কোনও স্টেশনে না দাঁড়ানো পর্যন্ত এর কোনও সমাধান করা সম্ভব না। কারণ আমাদের কোনও সদস্য ট্রেনে ডিউটি করেন না।”

মঙ্গলবারের ঘটনা নিয়ে এমআরটি পুলিশের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাহমুদ খান বলেন, “আজকের ঘটনায় কোনও মামলা এখনও হয়নি।”

ঢাকার উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত নতুন সূচিতে চলছে মেট্রোরেল। শনিবার সকাল ৭টা ১০ মিনিট থেকে রাত ৮টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত এটি চলে। ছবি : হারুন অর রশীদ

নজর দিতে গুরুত্ব

৩৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ঢাকার প্রথম মেট্রোরেল ২০২২ সালের ডিসেম্বরে উদ্বোধনের পর শুধু উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত চলত। গত নভেম্বরে মতিঝিল পর্যন্ত চলাচল শুরু হয়।

মঙ্গলবার একটি তার ছিঁড়ে চলাচলে বিভ্রাট ঘটার পরও পুরানা পল্টন এলাকায় মেট্রোরেলের লাইনের উপর দিয়ে একটি তার আড়াআড়িভাবে থাকতে দেখা গেছে।

বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের শিক্ষক কাজী মো. সাইফুন নেওয়াজ মনে করেন, পথের নিরাপত্তার যে কোনও ঝুঁকি এড়াতে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের নজর রাখা উচিৎ ছিল।

তিনি সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “মেট্রোরেলের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ গণপরিবহন চালু হওয়ার আগেই এসব বিষয় দেখা উচিৎ ছিল কর্তৃপক্ষের। কারণ এর সুরক্ষা তাদের নিজেদেরই নিতে হবে।”

মেট্রোরেলের পথের দুই পাশে শব্দ নিরোধক দেয়াল বা নয়েজ ব্যারিয়ার বসানোরও সুপারিশ করেন তিনি, যাতে আশপাশের ভবনে বসবাসরত মানুষ শব্দের যন্ত্রণা থেকে রেহাই পান।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist