Beta
সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪
Beta
সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪

কর্মস্থলে না পাওয়া পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করলেন মন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী
দুই স্বাস্থ্যকেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী
Picture of আঞ্চলিক প্রতিবেদক, সিলেট

আঞ্চলিক প্রতিবেদক, সিলেট

প্রথম সিলেট সফরেই এক পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনামন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর মঙ্গলবার সিলেট সফরে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সকালে জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও দুপুরে বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন তিনি।

জৈন্তাপুরে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রেন্টু পুরকায়স্থকে কর্মস্থলে না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মন্ত্রী। পরে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় বলে জানান জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ পরিচালক বিপ্লব বড়ুয়া।

জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডা. মো. সালাহ্ উদ্দিন মিয়া সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, সকালে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের নিয়ে জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র পরিদর্শন করেন মন্ত্রী। সেখানে রেন্টু পুরকায়স্থকে কর্মস্থলে না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। 

দুই স্বাস্থ্যকেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “প্রান্তিক জনপদে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে পারলে মেডিকেল কলেজগুলোয় ভীড় হবে না। দেশের মেডিকেল কলেজগুলোয় শুধু সেবা দেয়া হয় না সেখানে শিক্ষা ও গবেষণা করা হয়। তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোকে গুরুত্ব দিতে হবে, পরিবেশ তৈরি করে দিতে হবে।”

এসময় প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী ও সিলেট সিটি করপোরেশন মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। 

মন্ত্রী বলেন, “সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবস্থা খুব একটি ভাল না। জনবল সংকট রয়েছে। ভবন সংস্কার প্রয়োজন। এছাড়া সেখানে ডাক্তারদের উপস্থিতি কম থাকায় তাদেরকে কড়া নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সেখানে একজন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে না পাওয়ায় তাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

“তবে বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবস্থা তুলনামূলক ভালো। জনবল সংকট দূর করে প্রয়োজনীয় সেবা নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেওয়া হবে।”

পরে মন্ত্রী তার মামার বাড়ি বিশ্বনাথ উপজেলার দিঘলী গ্রামে যান। সেখানে আত্মীয় স্বজন ও গ্রামবাসী তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত