Beta
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪

১৬২ মোবাইল ফোন উদ্ধার করল এপিবিএন

ss-mobile-2-4-24

গত ২১ জানুয়ারি ছিনতাই হয় সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের ছাত্র মোহাম্মদ ফয়জুদ্দিনের মোবাইল ফোন। এরপর সেটি ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়েই দেন তিনি। ছিনতাই হওয়া সেই মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করে মঙ্গলবার ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে ফয়জুদ্দিনকে। উত্তরার ১২ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সাইবার ক্রাইম ইউনিট উদ্ধার করে এসব মোবাইল ফোন।

শুধু ফয়জুদ্দিনের নয়, গত ২ মাসে হারিয়ে যাওয়া ১৬২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে উত্তরার ১২ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সাইবার ক্রাইম ইউনিট। যেগুলোর আনুমানিক মূল্য প্রায় ৩৫ লাখ টাকা।

উত্তরার এপিবিএন সাইবার ক্রাইম ইউনিট কার্যালয়ে প্রকৃত মালিকদের হাতে মোবাইল ফোনগুলো তুলে দেন ১২ আর্মড পুলিশ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি আনিছুর রহমান। উদ্ধার মোবাইল ফোনগুলো প্রকৃত মালিকদের হাতে তুলে দিতে পেরে খুশি তিনি।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোনের পার্টস খুলে বিক্রয় করা হয় অনেক জায়গায়। এটা যতক্ষণ বন্ধ করতে না পারব ততক্ষণ আমাদের অভিযান চলবে।”

তবে ছিনতাই হওয়া মোবাইল ফোন অল্প সময়ের উদ্ধারের প্রক্রিয়া অত সহজ ছিল না। তিনি বলেন, “প্রচুর ডাটা অ্যানালাইসিস করতে হয়। এর জের ধরে বিভিন্ন জায়গা যেতে হয়। আমাদের প্রচুর কষ্ট করতে হয়। তারপরও আমরা কাজটা করি। কারণ আমরা যদি হাল ছেড়ে দিই তাহলে এসব আরও বাড়বে। আমাদের তৎপরতার কারণে তারাও (ছিনতাইকারীরা) আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। মোবাইল ফোন উদ্ধারের কাজ আমরা ভালোভাবে করার চেষ্টা করি এবং আমাদের সাফল্যের হারও বেশি।”

গার্মেন্টস শ্রমিক মোহাম্মদ রমজান আলীর মোবাইল ফোন চুরি হয়ে গিয়েছিল গাজীপুর চৌরাস্তার শালনা থেকে। তার মোবাইল ফোনটিও উদ্ধার করে দেয় পুলিশ। হারানো মোবাইল ফোন ফেরত পেয়ে উচ্ছ্বসিত রমজান বলেন, “পুলিশের প্রতি আমার আস্থা ছিল। মোবাইল ফোন ফিরে পেয়ে খুব খুশি আমি।”

মগবাজারের ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান হারিয়েছিলেন আইফোন সেভেন প্লাস। এর আগেও একবার আইফোন হারিয়েছেন তিনি, সেটি আর পাননি। এপিবিএন সাইবার ক্রাইম ইউনিটের কাছ থেকে মোবাইল ফোন বুঝে নিয়ে তিনি বলেন, “এবারও ভাবিনি পাবো। যেভাবে মোবাইল ফোনটা পুলিশ উদ্ধার করেছে তাতে পুলিশের ওপর আমার আস্থা অনেক বেড়ে গেল।”

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist