Beta
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

মিয়ানমারে সংঘাত : বিজিপির ৯৫ সদস্য পালিয়ে বাংলাদেশে

পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) সদস্যদের একাংশ।

মিয়ানমারে সংঘাতের জেরে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সীমান্ত এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। উপজেলার তুমব্রু সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির অন্তত ৯৫ সদস্য পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফুল ইসলাম সোমবার সকালে সকাল সন্ধ্যাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান সংঘর্ষের জেরে এখন পর্যন্ত মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ৯৫ জন সদস্য অস্ত্রসহ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

শরীফুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশে ঢুকে পড়া বিজিপি সদস্যদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়েছে বিজিবি। তাদের মধ্যে আহত ১৫ জন বিজিপি সদস্যের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

মিয়ানমারে সংঘাতের জেরে ৫০ জনের মত বিজিপি সদস্যের বাংলাদেশে ঢুকে পড়ার খবর শোনা যাচ্ছিল রবিবার বিকেলে। পরে রাতে বিজিবির এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ৬৮ জন বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এরপর সোমবার সকাল পর্যন্ত সংখ্যাটি বেড়ে ৯৫ জনে দাঁড়িয়েছে বলে আরেক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নিশ্চিত করেছে বিজিবি।

এর আগে ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর আজিজ জানান, মিয়ানমারের বিস্ফোরণের শব্দ আবার আসা শুরু করে শনিবার বিকালে। রবিবার বিকাল সাড়ে ৪টায়ও ওপার থেকে বিস্ফোরণে শব্দ এসেছে।

তিনি জানান, সংঘর্ষের শব্দ আসছে তুমব্রু সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) একটি ফাঁড়ি ঘিরে। সেখানে মিয়ানমারের বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর তুমুল সংঘর্ষ হচ্ছে। গোলা-গুলি, মর্টার শেল নিক্ষেপ করা হচ্ছে, যা মাঝে-মধ্যে সীমান্ত অতিক্রম করে এপারে চলে আসছে।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন রবিবার জানান, সীমান্তের গোলাগুলির ঘটনায় ঘুমধুম সীমান্তে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে পরিস্থিতি অনুকূলে আছে। মিয়ানমারের সঙ্গে সংযুক্ত মহাসড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সীমান্তের লোকজনকে সতর্ক ও নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। সীমান্তে যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিজিবি, পুলিশসহ নিরাপত্তা বাহিনীর সবাই সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

মিয়ানমারে সংঘাতের জেরে বিজিপি সদস্যদের বাংলাদেশে ঢুকে পড়ার বিষয়ে রবিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছিলেন, মিয়ানমারে আরাকান আর্মির সঙ্গে বিজিপির সংঘাত চলছে। সংঘাতের এক পর্যায়ে বিজিপি সদস্যরা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে কথা হচ্ছে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist