Beta
সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪

মিয়ানমারের গোলায় মানুষ মরলেও প্রতিবাদ করেনি সরকার : রিজভী

রিজভী
নয়াপল্টনে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে কথা বলছেন রুহুল কবির রিজভী

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘাতের মধ্যে বাংলাদেশের মাটিতে মর্টার শেল উড়ে আসার ঘটনাকে ‘দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের জলাঞ্জলি’ বলে মনে করছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব রুহল কবির রিজভী।

তার অভিযোগ, মিয়ানমারের ছোড়া মর্টারের গোলায় বাংলাদেশে মানুষ নিহত হলেও এ বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোনও প্রতিবাদ জানানো হয়নি।

মঙ্গলবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় জিয়া পরিষদের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, “আমরা এখন দেখছি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব জলাঞ্জলি দিয়ে মিয়ানমারের মর্টার শেলে বাংলাদেশের জনগণ মারা যাচ্ছে। কিন্তু তারা একটি বিবৃতিও দেয়নি। একটু প্রতিবাদও করেনি।

“কারণ মাথা তো আগেই বিক্রি করে দিয়েছে। যারা মাথা বিক্রি করে তারা কিছুই বলতে পারে না, প্রতিবাদ করতে পারে না।”

মঙ্গলবারই এ ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ। মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘাতের জেরে সীমান্তে যা হচ্ছে তা ‘অগ্রহণযোগ্য’ মন্তব্য করে এ প্রতিবাদ জানানো হয়।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বলেন, “মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত অং কিয়াও মোয়েকে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় তলব করা হয়েছে এবং বাংলাদেশ এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে।”

মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের উদ্বেগ ও প্রতিবাদ তার সরকারের কাছে পৌঁছে দেবেন বলেও জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে গত শনিবার রাতে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ছাত্রলীগের সমালোচনা করেন রুহুল কবির রিজভী। বলেন, “সরকার ছাত্রলীগকে একটি কুৎসিত সংগঠনে পরিণত করেছে। তাদের যা ইচ্ছা তাই করার স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে।”

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাস, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু ও মোয়াজ্জেম হোসেন আলালসহ কারাবন্দী বিএনপি নেতাদের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, গণতন্ত্রের পক্ষে কথা বলার কারণেই তাদের কারাগারে যেতে হয়েছে।

এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও জিয়া পরিষদের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস, মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, যুবদলের সাহিত্য প্রকাশনা সম্পাদক মেহবুব মাসুম শান্ত, ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি ওমর ফারুক কাওসারসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মিয়ানমার প্রসঙ্গ ও জাবিতে ধর্ষণের ঘটনায় কথা বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ও।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি বলেন, “চীনের সঙ্গে এত বন্ধুত্ব, মিয়ানমার তো চীনের লালিত দেশ। সেই দেশ থেকে গুলি আসে, রাখাইন থেকে সোলজাররা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়, এটা কিসের লক্ষণ?”

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণের ঘটনার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষ সোচ্চার হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “শত নির্যাতনের মধ্যেও তারা প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ফেলেনি, এটাই আমাদের ভরসা। এটা দেখে আমরা আশাবাদী যে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে পারব।”

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist