Beta
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

‘তুচ্ছ বিষয় নিয়ে স্বামীকে হত্যা, শাস্তি চাই’

নজরুলকে পিটিয়ে হত্যার খবর পেয়ে তার বাড়িতে ভিড় করে আশপাশের মানুষ। ছবি : সকাল সন্ধ্যা

নারায়ণগঞ্জে অটোরিকশা থেকে নেমে যাওয়ায় যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম ভূঁইয়াকে পিটিয়ে হত্যায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন তার স্ত্রী আসমা আক্তার। হত্যার ঘটনায় শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় মামলাও করেছেন তিনি। মামলায় সাত জনের নাম উল্লেখসহ আরও কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

মামলা করার পর বাদী আসমা আক্তার আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে বলেন, “তুচ্ছ বিষয় নিয়ে যারা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে, তাদের শাস্তি চাই।”

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুজ্জামান সকাল সন্ধ্যাকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, “নজরুল হত্যায় জড়িতদের পরিচয় পাওয়া গেছে। নজরুলের স্ত্রীও হত্যা মামলায় তাদের নাম উল্লেখ করেছেন। তবে ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক। তাদের ধরতে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে।”

নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া

মামলায় যে সাতজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তারা হলেন– মো. দায়েন (৫০), তার ছোট ভাই মো. জাকির (৪৫), মো. মহসিন (৪৫), জয়নাল আবেদীন (৪০), তার ছোট ভাই মো. আরিফ (৩৮), মো. রানা (৩৫), আবদীন (৩৯)। তাদের সবার বাড়ি সোনারগাঁয়ের মাঝের চর গ্রামে। এছাড়া আরও চার-পাঁচজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, বৃহস্পতিবার বিকেলে নজরুল ইসলাম বাড়ি থেকে রূপগঞ্জের ভূলতা হাঁটে যেতে মাঝেরচর স্ট্যান্ড থেকে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় ওঠেন। তবে অটোরিকশা ছাড়তে দেরি করায় তিনি নেমে গেলে চালকের সঙ্গে এ নিয়ে তর্ক হয়। এক পর্যায়ে আসামিরা তাকে মারধরসহ লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে স্থানীয়রা অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক নজরুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সোনারগাঁ থানার উপপরির্দশক (এসআই) মজিবুর রহমান বলেন, “পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও কাজ করছে। আসামিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।”

এদিকে শুক্রবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতাল থেকে নজরুল ইসলামের মরদেহ তার বড় ভাই মোহাম্মদ আলম বুঝে নেন। পরে বাদ আসর জানাযা শেষে চরনোয়াগাও গ্রামে মরদেহ দাফন করা হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist