Beta
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০২৪
Beta
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০২৪

নাভালনির মরদেহ অবশেষে মায়ের কাছে হস্তান্তর

১৬ ফেব্রুয়ারি কারাগারে মারা যান রাশিয়ার বিরোধী দলের নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি। ছবি: রয়টার্স
১৬ ফেব্রুয়ারি কারাগারে মারা যান রাশিয়ার বিরোধী দলের নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি। ছবি: রয়টার্স
Picture of সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

কারাগারে ৯ দিন আগে মারা যাওয়া রাশিয়ার বিরোধী দলের নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির মরদেহ অবশেষে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নাভালনির রাজনৈতিক সহযোগী কিরা ইয়ারমিশ তার এক্স হ্যান্ডলে শনিবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। 

এক্স হ্যান্ডলে ইয়ারমিশ লিখেছেন, “নাভালনির মরদেহ অবিলম্বে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তরের দাবি যারা জানিয়েছেন, তাদের সবাইকে ধন্যবাদ।”

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কট্টর সমালোচক নাভালনির শেষকৃত্য সংক্রান্ত পরিকল্পনা এখনও চূড়ান্ত হয়নি বলেও এক্স হ্যান্ডলে জানান ইয়ারমিশ।

সেখানে তিনি বলেছেন, “নাভালনির পরিবার যেভাবে চাইছে এবং তার শেষকৃত্য যেভাবে হওয়া উচিত, সেভাবে শেষকৃত্য করতে গেলে রুশ কর্তৃপক্ষ বাধা দেবে কি না, তা আমরা জানি না।”

এর আগে শোনা গিয়েছিল, নাভালনির মা লুদমিলা নাভালনায়াকে রুশ কর্তৃপক্ষ বলেছিল, তিনি যেন তার ছেলেকে ‘গোপনে’ কবর দিতে রাজি হন।

এ বিষয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, নাভালনির সহযোগী কিরা ইয়ারমিশ বলেছেন, তার মা নাভালনায়াকে ছেলের ডেথ সার্টিফিকেট দেয় রুশ কর্তৃপক্ষ, যাতে লেখা ছিল, রুশ বিরোধী দলের নেতার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে।

নাভালনায়াকে ওই ডেথ সার্টিফিকেটে স্বাক্ষর করতে বলা হয়। স্বাক্ষরের পর তাকে বলা হয়, তিনি যেন ছেলের শেষকৃত্য ‘গোপনে’ করেন। রুশ কর্তৃপক্ষ তাকে সিদ্ধান্ত নিতে তিন ঘণ্টা সময় দেয়।               

নাভালনায়াকে এও বলা হয়, যদি তার সিদ্ধান্ত রুশ কর্তৃপক্ষের বিপক্ষে যায়, তাহলে যে কারাগারে নাভালনির মৃত্যু হয়েছে, সেই কারাগারের ভেতরে তাকে কবর দেওয়া হবে।

ছেলের শেষকৃত্য নিয়ে অবশ্য রুশ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কোনও ধরনের সমঝোতায় যেতে রাজি হননি নাভালনায়া। তাদের প্রস্তাব তিনি প্রত্যাখ্যান করেন।        

কারোর অস্বাভাবিক মৃত্যু হলে তার মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষ হওয়ার পরপরই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করাই নিয়ম। কিন্তু নাভালনির ক্ষেত্রে সেটা হয়নি।

বিরোধী দলের এই নেতার মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষ হওয়ার পরও বুঝে পায়নি তার পরিবার। মৃত্যুর দুদিন পর তাদের বলা হয়েছিল, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে মৃত্যুর কারণ অস্পষ্ট হওয়ায় ফের ময়নাতদন্ত করা লাগবে। তখন রুশ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে নাভালনির মরদেহ ‘লুকিয়ে রাখার’ অভিযোগ তোলে তার পরিবার ও সহযোগীরা।

এর দুদিন পর ২০ ফেব্রুয়ারি রুশ কর্তৃপক্ষ জানায়, নাভালনির মরদেহের ‘রাসায়নিক পরীক্ষার’ দরকার আছে। পরিবারকে মরদেহ হস্তান্তরে এজন্য দুই সপ্তাহ সময় লাগবে।

পুতিনের সমালোচক হিসেবে পরিচিত নাভালনির মরদেহ হস্তান্তরে রুশ কর্তৃপক্ষের ‘গড়িমসি ও কালক্ষেপণ’ দেখে সে সময় তার স্ত্রী ইউলিয়া নাভালনায়া অভিযোগ করেন, নাভালনিকে বিষ দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তার মরদেহ থেকে বিষের আলামত পুরোপুরি মুছে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে রুশ কর্তৃপক্ষ। এ কারণেই মরদেহ হস্তান্তরে দেরি করছে তারা।

স্বামীর মৃত্যুর পেছনে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের হাত আছে বলেও সে সময় অভিযোগ করেন ইউলিয়া নাভালনায়া।

স্ত্রী ইউলিয়া নাভালনায়ার সঙ্গে অ্যালেক্সি নাভালনি। ছবি: আনাদোলু নিউজ

নাভালনির পরিবার ও রাজনৈতিক সহযোগীদের চাপে শেষ পর্যন্ত দুই সপ্তাহ হওয়ার আগেই তার মরদেহ হস্তান্তরে বাধ্য হলো রুশ কর্তৃপক্ষ।          

উগ্রপন্থী সংগঠন প্রতিষ্ঠা ও এতে অর্থায়ন, জালিয়াতি, আদালত অবমাননাসহ নানা অভিযোগে ৩০ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছিল নাভালনিকে। যদিও তিনি জীবিত অবস্থায় এসব অভিযোগকে বরাবরই ‘রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ বলেছিলেন।

কারা কর্তৃপক্ষ ১৬ ফেব্রুয়ারি নাভালনির মা লুদমিলা নাভালনায়াকে জানায়, তার ছেলে কারাগারের ভেতর হাঁটাচলার সময় হঠাৎ পড়ে যান এবং জ্ঞান হারান। পরে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কারা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে পরদিন আইনজীবীকে সঙ্গে নিয়ে দেশটির প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত কারাগারটিতে ছুটে যান লুদমিলা। সেখানে পৌঁছার পর তাকে একটি সরকারি বিজ্ঞপ্তি ধরিয়ে দেওয়া হয়, যাতে লেখা ছিল শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ১৭ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ৪৭ বছর বয়সী নাভালনি।

বিবিসি জানিয়েছে, কারাগারে নাভালনির মৃত্যু ঠিক কী কারণে হয়েছিল, তা জানতে অনেক চেষ্টা করেছেন তার সহযোগীরা। এমনকি বিরোধী দলের নেতার মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য পেতে কারাগারটির নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের পুরস্কার হিসেবে ২২ হাজার ডলার দেওয়ারও প্রস্তাব দিয়েছিলেন তারা।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত