Beta
বুধবার, ২২ মে, ২০২৪
Beta
বুধবার, ২২ মে, ২০২৪

ঝিনাইদহ-১ আসনের উপনির্বাচনে বাধা নেই

ss-highcourt-2024
Picture of প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

প্রতিবেদক, সকাল সন্ধ্যা

আদালতের আদেশের কারণে আবারও আলোচনায় ঝিনাইদহ-১ আসনের উপনির্বাচন।

সোমবার এই উপনির্বাচনের তফসিল স্থগিত করে যে আদেশ হাইকোর্ট দিয়েছিল, বুধবার সেটিই স্থগিত করে দিয়েছে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের চেম্বার জজ আদালত এ আদেশ দেয়।

নতুন এই আদেশের ফলে আগামী ৫ জুন এই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠানে আর কোনও বাধা থাকল না বলে জানিয়েছেন আইনজীবী শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ। তিনি ওই উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. নায়েব আলী জোয়ার্দ্দারের আইনজীবী।

গত ৬ মে উপনির্বাচন ২১ দিনের জন্য স্থগিত করে আদেশ দিয়েছিল বিচারপতি মো. জাকির হোসেনের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ। তার বিরুদ্ধে আপিল করেন মো. নায়েব আলী।

সেই আপিলের শুনানি শেষেই হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে দেওয়া হয়।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা, শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ ও বি এম ইলিয়াস কচি। অপরপক্ষে ছিলেন আইনজীবী সৈয়দ মামুন মাহবুব।

চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাইকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। কিন্তু ভোটে অনিয়মের অভিযোগ এনে স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম দুলাল বিশ্বাস হাইকোর্টে ইলেকশন পিটিশন দায়ের করেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট বিবাদীদের নোটিশ ইস্যু করে গেজেট স্থগিতের আদেশ দেয়। বিষয়টি গড়ায় আপিল বিভাগ পর্যন্ত। আপিল বিভাগ হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে দেয়।

এদিকে গত ১৬ মার্চ আব্দুল হাই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এরপর আসনটি শূন্য ঘোষণা করে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

গত ২৩ এপ্রিল নির্বাচন কমিশনের সভা শেষে আগামী ৫ জুন ঝিনাইদহ-১ শূন্য আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান নির্বাচন কমিশন সচিব মো. জাহাংগীর আলম।

এরপর নজরুল ইসলাম দুলাল বিশ্বাস সম্পূরক আবেদন করে নির্বাচন স্থগিত চান। তার আইনজীবীর দাবি, এখন নিয়ম হচ্ছে বিজয়ী প্রার্থী মারা গেলে আবেদনকারীকে বিজয়ী ঘোষণা করা। সেটা না করে নতুন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। যা ন্যায়সঙ্গত নয়।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ৭ জানুয়ারি নির্বাচনে অংশ নেওয়া নজরুল ইসলাম বিশ্বাস বিল্ডার্স ও কালবেলা মিডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ব্যবসার পাশাপাশি স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গেও তিনি জড়িত।

ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের এই সহ-সভাপতি দলের মনোনয়ন পেতে ফরমও জমা দিয়েছিলেন। কিন্তু মনোনয়ন না পাওয়ায় পরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটে অংশ নেন।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত