Beta
শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪

স্বাধীনতা ঘোষণার পরিকল্পনা এখনও নেই: আরাকান আর্মি

এএ কমান্ডার-ইন-চিফ জেনারেল তুয়ান ম্রাত নাইং

রাখাইন রাজ্যের স্বাধীনতা ঘোষণা করার কোনও পরিকল্পনা আপাতত নেই আরাকান আর্মির (এএ)। সম্প্রতি বিবিসি মিয়ানমারকে একথা জানান এএ কমান্ডার-ইন-চিফ জেনারেল তুয়ান ম্রাত নাইং।

‘রাখাইনের স্বপ্ন’ পূরণ করা কি সম্পূর্ণ রাখাইন সার্বভৌমত্ব পুনঃপ্রতিষ্ঠা বলে বিবেচিত হবে— এমন প্রশ্নের উত্তরে এএ নেতা জানান, গত ৭০ বছরে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী যে পথে হাটছে, সেই পথ অনুসরণ করে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো যাবে না।

তুয়ান ম্রাত নাইং বলেন, “আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে ব্যর্থ হলে, বিকল্প পথ খোঁজার প্রয়োজন পড়বে।”

‘রখাইনের স্বপ্ন’ এবার পূরণ হবে কিনা— এমন প্রশ্নের উত্তরে এএ নেতা বলেন, “আমি কখনও না বলব না। তবে আমরা সবচেয়ে কঠিন সময়েও সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। আর এখন প্রত্যাশার অনেক কাছাকাছি আমরা।”

রাখাইন জনগণ সম্পর্কে তিনি বলেন, “এটি এমন এক সময় যখন সমস্ত রাখাইন জনগণ ঐক্যবদ্ধ। তারা পূর্ণ শক্তি নিয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা তাদের স্বপ্ন পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে।”

বর্তমান পরিস্থিতিতে নিজেদের অবস্থান আরও স্পষ্ট করে তুয়ান ম্রাত নাইং বলেন, “যু্দ্ধক্ষেত্রে কষ্টের মধ্যে থাকা মানুষেরা আজ একজোট হয়েছে। শত্রুরা আমাদের ঘরবাড়ি-গোটা এলাকা পুড়িয়ে দিয়েছে। তাই আমরা লড়াই বন্ধ করতে পারি না। মুক্তি পেতে হলে আমাদের লড়াই করতেই হবে। আমরা আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি আশাবাদী। আরও বেশি চেষ্টা করছি এবং সফলতার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করব।”

এএ চিফ অব স্টাফ আরও জানান, গোটা রাখাইন অঞ্চল পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত তারা লড়াই চালিয়ে যাবে।

আরাকান আর্মির পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমাদের কিছু পরিকল্পনা এখনো গোপন। তবে লক্ষ্য পূরণের জন্য আমরা সামরিকভাবে রাখাইন অঞ্চল নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালিয়ে যাবো।”

শেষে সেনাবাহিনী প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানো জান্তার কৌশলেরই অংশ। তবে এই পরিস্থিতি মিয়ানমারের জনগণের জন্য মুক্তির সুযোগ তৈরি করেছে। সামরিক স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে এটাই সবচেয়ে উপযুক্ত সময়। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মুক্তির পথে এগিয়ে যেতে হবে।”

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist