Beta
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২৪

সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধ কঠিন, সহনশীল করতে হবে : কাদের

সভায় বক্তব্য দেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি : সকাল সন্ধ্যা
সভায় বক্তব্য দেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি : সকাল সন্ধ্যা

সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধ করা কঠিন বলে মনে করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকার বনানীতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয়ে ‘পবিত্র ঈদুল ফিতর ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে সড়কপথে যাত্রীসাধারণের যাতায়াত নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ করার লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা’য় তিনি এ অভিমত দেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “হঠাৎ করে এটা (চাঁদাবাজি) বন্ধ করা কঠিন। কিন্তু সহনশীল করতে হবে।”

এ প্রসঙ্গে উদাহরণ হিসেবে দুর্নীতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, “যেমন মনে করেন দুর্নীতি। এটা কি শুধু বাংলাদেশে হয়, আমেরিকাতে হয় না? সেখানেও হয়। একেবারে বন্ধ করা তো কঠিন।”

মহাসড়কে যাতায়াত নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ করার জন্য হাইওয়ে পুলিশ ও বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি করার বিকল্প নেই জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “আমরা যতই সিদ্ধান্তই নেই না কেন, হাইওয়ে পুলিশ ও বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি না পেলে কোনোভাবেই কিছু হবে না।

“আমাদের এই দুই সংস্থা ‘ঢাল নাই তলোয়ার নাই, নিধিরাম সর্দার’ হয়ে বসে আছে। এভাবে চলতে পারে না। এদের সক্ষমতা বাড়াতে না পারলে কোনও সিদ্ধান্তই কার্যকর করা যাবে না।” 

ঢাকায় চলাচল করা লক্কড়-ঝক্কড় গাড়িগুলো বাংলাদেশের উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করে- এমন মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “যখন বিদেশিরা বাংলাদেশে আসে এবং আমাদের লক্কর-ঝক্কর গাড়ি দেখে, তখন আমাদের খুব লজ্জা হয়। এগুলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। পরিবহন মালিকদের এদিকে নজর দিতে হবে।”

তিনি বলেন, “পরিবহন মালিক সমিতির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, ঢাকার বাইরে থেকে ফিটনেসবিহীন গাড়ি ঢাকায় ঢোকে। আমি তো বলব- বাইরে থেকে সিটিতে লক্কড়-ঝক্কড় গাড়ি কম আসে। বরং সিটিতেই অনেক লক্কড়-ঝক্কড় গাড়ির কারখানা আছে। আমি সেগুলো নিজের চোখে গিয়ে দেখেছি। ঈদের আগে সেগুলোতে রং লাগাতে দেখেছি, যে রং আবার ১০ দিনও থাকে না।”

সড়কে ভোগান্তি কমাতে উত্তরবঙ্গের রাস্তা ঠিক রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করে মন্ত্রী বলেন, “আমাদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উত্তরবঙ্গের রাস্তা ঠিক রাখা। উত্তরবঙ্গের রাস্তা যদি ঠিক থাকে তাহলে সব রাস্তা ঠিক। চট্টগ্রামে যানজট হওয়ার সম্ভাবনা দেখি না। সিলেটে চার লেনের যে কাজ চলছে তা কিছুদিনের জন্য বন্ধ থাকবে, যেন মানুষের যাতায়াতে ভোগান্তি না হয়।”

আসন্ন ঈদুল ফিতরের সময়ে যানজট ও যাত্রীদের ভোগান্তি নিরসনে সভায় কিছুদিন সেতুগুলোতে টোল বন্ধ রাখার পরামর্শ দেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।

তিনি বলেন, “হানিফ ফ্লাইওভারে যে যানজট হয় তা অকল্পনীয়। এটা যে কী কষ্টদায়ক… তার ব্যাপারে কী করা যায় তা দেখতে হবে। দরকার পড়লে কিছুদিন আমরা টোল বন্ধ রাখতে পারি। এতে যে ক্ষতি হবে তা দরকারে সরকার বহন করবে।”

সভায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৭৩ জনের পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়। ছবি : সকাল সন্ধ্যা

চাঁদা এবং চাঁদাবাজি এক না মন্তব্য করে শাজাহান খান বলেন, “চাঁদা বৈধ কিন্তু চাঁদাবাজি অবৈধ। প্রত্যেক সংগঠন যারা রেজিস্ট্রেশন পায় তখনই তার একটা চাঁদা ঠিক হয়। কিন্তু এই চাঁদা যখন চাপ প্রয়োগ করে অতিরিক্ত নেয়, তখন তা চাঁদাবাজি। চাঁদাবাজি বন্ধ করতে পারলে জিনিসপত্র দাম কমে যাবে। চাঁদাবাজি আমরা বন্ধ করতে পারছি না। এতে সড়কে শ্রমিকের অবস্থা খুবই নাজুক হয়ে যাচ্ছে।”

সড়ক দুর্ঘটনার জন্য মোটরসাইকেল দায়ী বলেও মন্তব্য করেন শাজাহান খান। তিনি বলেন, “সড়কে দুর্ঘটনা সব সময় গাড়িচালকের জন্য ঘটে না। এখন এসব দুর্ঘটনার অন্যতম প্রধান কারণ মোটরসাইকেল। মোটরসাইকেলগুলো বেশিরভাগ সময় লাইসেন্স থাকে না, হেলমেট থাকে না, তিনজন এক সাইকেলে ওঠে। এদের কারণে সড়ক বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে। এবারের ঈদে পুলিশের তৎপর থাকা উচিত, যেন তারা মহাসড়কে উঠতে না পারে।”

সভায় পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন লোকজনকে সড়কে গাড়ি থামিয়ে সেহরি বা ইফতার না করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, “আমরা দেখি প্রতি ঈদেই ইফতারের সময় সড়কে গাড়ি থামানো হয়, সেহরির সময় গাড়ি থামানো হয়। তখন যানজট তৈরি হয়। যাত্রীরাও খাবার আনতে নেমে যায়। এজন্য দীর্ঘ যানজট লেগে যায়। অনেক সময় এই সুযোগে চালকরা ঘুমিয়ে পড়ে। পরে তাদেরকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে গাড়ি ছাড়তে হয়।”

সড়কে গাড়ির চাপ বাড়লে যানজট হবেই জানিয়ে আইজিপি বলেন, “যেখানে ৫০০ গাড়ি যাওয়ার কথা সেখানে প্রতি ঘণ্টায় ৫ হাজার গাড়ি গেলে যানজট তো একটু হবেই। কিন্তু আগের থেকে এখন রাস্তা ভালো থাকায় আমি আশা করি এবার আগের বছরগুলো থেকে যানজট কমই থাকবে।”

ঈদে ছুটি একদিন বাড়ানোর বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের ভেবে দেখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “ছুটি তো শুধু ১০ এপ্রিল থেকে, এর থেকে একদিন বেশি ছুটি বাড়ানো যায় কিনা তা ভেবে দেখতে বলব। কারণ একদিনে যখন এত মানুষ বের হয় তখন যানজট ঠেকানো কঠিন হয়ে পড়ে।”

সভায় বাড়তি ভাড়া আদায়কারীদের গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে মনিটরিংয়ের পরামর্শ দেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গা।

তিনি বলেন, ঈদে মালিকদের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত কোনও ভাড়া নেওয়া হয় না। তারপরও প্রতিবার অতিরিক্ত ভাড়ার অভিযোগ আসে। আমাদের আসলে এতো পরিমাণ গাড়ি, যার কারণে সবগুলোকে একসঙ্গে দেখা সম্ভব হয় না। প্রতিবার কিছু অসাধু মানুষ আগেই বেশি করে টিকিট কেটে রেখে দেয়, এরপর ঈদের আগে বেশি দামে বিক্রি করে। এ বিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থাকে কাজে লাগালে প্রতিকার পাওয়া যাবে। 

সভায় জানানো হয়, সারা দেশে সম্ভাব্য যানজটের ১৫৫টি স্পট চিহ্নিত করেছে বিআরটিএ। এই স্পষ্টগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনের আদেশ দেওয়া হয়। এছাড়াও সংশ্লিষ্ট জেলার কর্মকর্তাদের এসব জায়গা নিয়ে সতর্ক থাকতে বলা হয়।

টোল প্লাজাগুলো ধরে যানজট বৃদ্ধি হওয়ার কারণে সার্বক্ষণিক ইটিসি বুথ চালু থাকার কথা জানানো হয়। সিএনজি, ফিলিং স্টেশনগুলোকে ঈদের আগের ৭ দিন থেকে ঈদের পর ৫ দিন পর্যন্ত সার্বক্ষণিক খোলা রাখার কথা বলা হয়। গার্মেন্টসসহ সব শিল্প ও কল-কারখানার কর্মীদের পর্যায়ক্রমে ছুটির ব্যবস্থা করতেও সংশ্লিষ্টদের উদ্যোগ নিতে সভা থেকে আহ্বান জানানো হয়।

এছাড়া সভায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৭৩ জনের পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist