Beta
রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪

সাগর-রুনি হত্যা মামলা : সময় বেঁধে দিতে চান না আইনমন্ত্রী

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্তের সময় বেঁধে দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। সোমবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের পক্ষে এ কথা জানান আনিসুল হক। মামলাটি কঠিন উল্লেখ করে তদন্তকারী সংস্থা সঠিকভাবে তদন্ত করে এ মামলার সুরাহা করবেন বলেও সংসদে জানান তিনি। 

জাতীয় সংসদে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ তার সম্পূরক প্রশ্নে বলেন, “সাগর-রুনি হত্যা মামলার এক যুগ পেরিয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত তদন্ত প্রতিবেদন বের হয়নি। পুলিশ পারে না এমন কোনও কাজ নেই। একটা মামলার তদন্ত করতে কত বছর লাগবে? সাহারা খাতুন বলেছিলেন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এখন ৪৮ ঘণ্টার জায়গায় ৪৮ মাস গিয়ে ৪৮ বছর লাগতে পারে। ২০২৪ সালের মধ্যে সাগর-রুনি হত্যা মামলার চার্জশিট থানায় পৌঁছাবে কিনা জানতে চাই।”

জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, “সংসদ সদস্যের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাকে আমি সাধুবাদ জানাই। একটা জিনিস আমাদের লক্ষ্য করতে হবে যারা তদন্ত করে তারা যতক্ষণ পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন না করতে পারেন, ততক্ষণ পর্যন্ত তদন্ত শেষ করা সমীচীন হয় না। যদি তদন্ত করতে খুব গভীরে যেতে না হয়, সহজেই অভিযোগকারী ও অপরাধকারীদের ধরা যায় তাহলে সেটা তাড়াতাড়ি করা যায়।”

আনিসুল হক বলেন, “যে মামলাটার কথা উনি (হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ) বলছেন সেটার তদন্ত একটু কঠিন। আমি এইটুকু বলতে পারি, অবশ্যই তদন্তকারী সংস্থা সঠিকভাবে তদন্ত করে এ মামলার সুরাহা করবে। যারা অপরাধী তাদের অবশ্যই ধরা হবে। তবে আমি এ মামলার সময় বেঁধে দিতে চাই না। আমি আইনজীবী জানি এটার সময় বেঁধে দেওয়া সম্ভব না।”

বেসরকারি টিভি চ্যানেল মাছরাঙার বার্তা সম্পাদক ছিলেন সাগর সরওয়ার এবং তার স্ত্রী মেহেরুন রুনি ছিলেন এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক। ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারে নিজেদের ভাড়া বাসায় হত্যা করা হয় এই দম্পতিকে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist