Beta
রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪

যে কারণে রোজায় স্কুল বন্ধ রাখতে আদালতের শরণ

স্কুলের শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি।
স্কুলের শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি।

স্কুল শুরু ও ছুটির সময় প্রতিদিনই ঢাকায় যানজট বেড়ে যায়। গরম আর যানজট মিলে পথে ভোগান্তি বাড়ে শিশুদের।

রোজায় এই যানজট পরিস্থিতি আরও অসহনীয় হয়ে ওঠে। ফলে রমজান মাসে স্কুল খোলা রাখলে যে শিশুরা রোজা রাখবে তাদের জন্য কষ্টকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে।

এমন যুক্তি দেখিয়ে দেশের সরকারি প্রাথমিক, নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক স্কুলগুলো রোজার প্রথম ১০ ও ১৫ দিন খোলার রাখার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করা হয়।

রবিবার সেই আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে স্কুল খোলা রাখার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত দুই মাসের জন্য স্থগিত করেছে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এ কে এম ফয়েজ, তার সঙ্গে ছিলেন মাহমুদা খানম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি শেখ মো. সাইফুজ্জামান।

আদেশের বিষয়ে মাহমুদা খানম সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, “রমজান মাসে প্রাথমিক বিদ্যালয় ১০ দিন এবং নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১৫ দিন খোলা রাখতে যে প্রজ্ঞাপন হয়, সেটি চ্যালেঞ্জ করে আমরা রিট আবেদন করি। সেই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত ওই প্রজ্ঞাপনের সিদ্ধান্ত স্থগিত করে দিয়েছে।”

একই সঙ্গে এই প্রজ্ঞাপন দুটি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়েও রুল জারি করা হয়েছে।

কিসের ভিত্তিতে রিট আবেদন করা হয়েছে জানতে চাইলে এই আইনজীবী বলেন, “রোজার সময় স্কুল খোলা থাকায় ঢাকা শহরে প্রচণ্ড রকম যানজটের তৈরি হয়। দ্বিতীয়ত অনেক কোমলমতি শিক্ষার্থী রোজা রাখে, রোজা রেখে স্কুলে ক্লাস করা কষ্টসাধ্য।

“গতবারও রোজায় স্কুল খোলা রাখা হয়েছিল, যানজটের কারণে কয়েকদিন পর স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। এসব বিবেচনায় নিয়েই আমরা আদালতে নির্দেশনা চেয়েছিলাম।”

সোমবার বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা গেলে মঙ্গলবার থেকে শুরু হবে রমজান। হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশ বহাল থাকলে সেদিন থেকেই বন্ধ হয়ে যাবে স্কুলগুলো।

কিন্তু রবিবার বিকাল পর্যন্ত স্কুল বন্ধের বিষয়ে কোনও নোটিশ দেয়নি শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর।

আর যদি এর মধ্যে উচ্চ আদালতে হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল হয়, তাহলে সরকারের আগের সিদ্ধান্ত পুনর্বহাল হওয়ারে সুযোগ রয়েছে।

হাইকোর্টের এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে যাবেন কিনা জানতে চাইলে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মো. সাইফুজ্জামান বলেন, “বিষয়টি আমি অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসে নোট দিয়েছি, সিদ্ধান্ত হলে আপিল হবে।”

এর আগে চলতি বছরের শুরুতে প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্কুল ও কলেজগুলোয় রমজানে ৩০ দিন ছুটি রেখে বার্ষিক ছুটির তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিল।

তবে ৮ ফেব্রুয়ারি ছুটির তালিকায় সংশোধনী নতুন প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেখানে রমজানের প্রথম ১৫ দিন মাধ্যমিক স্কুল খোলা রাখার সিদ্ধান্তের কথা বলা হয়।

১১ ফেব্রুয়ারি একই সিদ্ধান্ত জানায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ও। তবে তারা প্রথম ১০ দিন স্কুল খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।

রোজার প্রথম ১০ দিন প্রাথমিক স্কুল এবং নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলো ১০-২৪ মার্চ পর্যন্ত খোলা রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়ে সরকারের দেওয়া প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেছিলেন ঢাকার রাজাবাজারের বাসিন্দা এক অভিভাবক মো. শফিউর রহমান চৌধুরী। রিটে শিক্ষা সচিব, শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist