Beta
সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪

তিন নয়, দুই ছক্কাতেই ম্যাচ বরিশালের মুঠোয়

ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বরিশালের জয় নিশ্চিত করেছেন শোয়েব মালিক ও মেহেদী হাসান মিরাজ। ছবি: সংগৃহীত

শেষ ওভারে ১৮ রান দরকার ছিল ফরচুন বরিশালের। খুলনা টাইগার্সের হয়ে শেষ ওভারে বল করতে আসা দাসুন শানাকার তিন বলে তিন ছক্কা মারলেই জয় নিশ্চিত হয়- এটা ডাগআউটে বসা সতীর্থরা খুব করে চেয়েছিলেন! কিন্তু কঠিন অঙ্ক। তবে ৬ বলের ওভারে অন্যভাবেও ১৮ রানের হিসাব মেলানো যায়। সেটা মিলিয়ে ফরচুন বরিশাল ৫ উইকেটে হারায় খুলনা টাইগার্সকে।

শেষ ওভারে সেই ৬ বলও লাগেনি তাদের। ২ বল হাতে রেখেই ১৫৬ রান করে বরিশাল ম্যাচ জিতেছে। আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৫৫ রান তুলেছে খুলনা। জবাবে তামিম ইকবালদের শেষ দুই ওভারে দরকার ছিল ৩৭ রানের। তা সম্ভব হয়েছে শোয়েব মালিক ও মেহেদী হাসান মিরাজের জুটিতে ২৩ বলে ৫৫ রানের অবিশ্বাস্য ব্যাটিংয়ে।

দুশ্চিন্তা মিলিয়ে দিয়েছিল মালিক-মিরাজ জুটি। সংবাদ সম্মেলনে এসে বরিশালের স্পিনার তাইজুল ইসলাম স্বীকার করেন, “ম্যাচটায় আমরা ৭০ ভাগ ব্যাকফুটে ছিলাম। তাই ডাগআউটে অনেক টেনশন কাজ করছিল। নানা আলাপও হচ্ছিল।”

এর মধ্যেই নাকি তিন ছক্কায় ম্যাচ শেষ করে দেওয়ার স্বপ্ন দেখছিলেন তারা। তাইজুলই বলেছেন শেষ ওভারে তিন ছক্কার চিন্তার কথা, “আমাদের ১৮ রান দরকার। তখন সাধারণত একরকম কথা (তিন ছক্কা প্রসঙ্গে) হয়েই থাকে। সোজাসাপ্টা ভাবনা ছিল, এক ওভারে তিনটা ছয় হলেই হয়ে যায়। প্রথমে ছক্কা পেয়ে গেলে বড় সুবিধা হয়, ব্যাটারেরও আত্মবিশ্বাস বাড়ে।”  

শানাকর শেষ ওভারের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকান মিরাজ। পরের বলে একটি সিঙ্গেল নেন। এরপর টানা দুই বলে চার ও ছক্কায় ১০ রান নিয়ে ম্যাচ শেষ করে দেন শোয়েব। শানাকা পরে একটি ওয়াইড দিয়ে প্রতিপক্ষের জয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারেন।

শোয়েব ২৫ বলে ৩ ছক্কা ও এক চারে আপরাজিত থাকেন ৪১ রানে। আরেক অপরাজিত ব্যাটার মিরাজ ৩১ রান করেন ১৫ বলে ৩ ছক্কা ও একটি চারে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist