Beta
সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪

প্রধান নির্বাচক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সুজনের বিস্ময়

শেষ হয়েছে মিনহাজুল আবেদীন নান্নু অধ্যায়। বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক এখন গাজী আশরাফ হোসেন লিপু। নতুন কারও আসা নিয়ে আপত্তি নেই বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেট অপারেশন্স ভাইস চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজনের। তবে যে প্রক্রিয়ায় এই নিয়োগ হয়েছে তাতে বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ তিনি।

নির্বাচক নিয়োগের কাজটি করেছে জালাল ইউনুসের নেতৃত্বাধীন ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগ। সুজন সেই কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান। তবু গাজী আশরাফ হোসেন লিপুর নিয়োগ নিয়ে কিছুই জানতেন না সুজন।

এ নিয়ে আজ (মঙ্গলবার) চট্টগ্রামে সুজন বলেছেন, ‘‘ আমি তো পরিষ্কার করলাম আমি জানি না কিছু। আমি ক্রিকেট অপারেশন্সের ভাইস চেয়ারম্যান আমি জানিই না, ক্রিকেট অপারেশন্স নির্বাচক নিচ্ছে- কে হচ্ছে। খুবই অবাক করার মতো। আমার এই পজিশনে থাকার প্রয়োজন কি সেটাও জানি না আসলে।’’

গাজী আশরাফ হোসেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক । বোর্ড পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তার নতুন দায়িত্ব নিয়ে আপত্তি নেই সুজনের। তবে নিয়োগের এই প্রক্রিয়াটা নিয়ে আপত্তি তার, ‘‘লিপু ভাইয়ের অনেক ক্রিকেট মেধা। আমাদের অনেক সিনিয়র। উনাকে নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকতে পারে না। উনি আসাতে ভালো হতে পারে। তিনি নির্বাচক হতে পারেন, এমন কিছু আমি আগে শুনিনি। খুবই চমকপ্রদ সিদ্ধান্ত এসেছে বিসিবি থেকে।’’

গাজী আশরাফ হোসেন লিপু এখনকার ঘরোয়া ক্রিকেট সম্পর্কে কতটা জানেন, সে নিয়ে সুজনের সংশয় আছে। তবে খামতিগুলো পুষিয়ে সুজনের প্রশ্ন আছে তা নিয়েও, ‘‘ক্রিকেট যিনি খেলেছেন, তার ক্রিকেট জ্ঞান সম্পর্কে প্রশ্ন করাটা স্বাভাবিক নয়। বাংলাদেশ ক্রিকেটের অধিনায়কত্ব করেছেন। এত বছর ধরে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। মাঝে ওনার হয়তো একটা বিরতি আছে। টিভিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট দেখে তো আমরা অনেকে কথা বলতেই পারি। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে কী হচ্ছে, প্রিমিয়ার লিগ বা বয়সভিত্তিক ক্রিকেট কেমন চলছে, সেটার হয়তো ভাল ধারনা নেই তার। অবশ্য তার জন্য খুব একটা কঠিন হবে, হয়তো একটু সময় লাগবে। তার ক্রিকেট মেধা, বিচক্ষণতা ও বোধ নিয়ে কোনো প্রশ্নই থাকতে পারে না।’  

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist