Beta
শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪

হৃদয়ের কাছে ছক্কা মারা কঠিন কিছু না

ছন্দে থাকা তাওহিদ হৃদয়ের ব্যাটিং চমক উপহার দেয়। তার ব্যাট সুইং এত দ্রুত হয় যে সব চার-ছক্কাকে একটু অন্যরকম দেখায়। হৃদয়ের কাছে এসব সাধারণ ব্যাপার। তাই ছক্কা মারাও তার কাছে বিশেষ কিছু নয়। চলতি বিপিএলে দুর্দান্ত ঢাকার বিপক্ষে ৭ ছক্কা ও ৮ চারে ৫৭ বলে ১০৮ করে সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের এই ব্যাটার বলে গেলেন, ‘‘ছক্কা মারা কঠিন না।’’

বাংলাদেশের ব্যাটাররা বড় ছক্কা মারতে পারেন না বলে একটা দুর্নাম আছে। হৃদয় অবশ্য সেই তালিকায় পড়বেন না। জাতীয় দলে গত বছর অভিষেক হওয়ার পর থেকে পুল, লফটেড ড্রাইভ, স্লগ সব ভাবেই ছক্কার মার দেখিয়েছেন। ক্যারিয়ারের ২৭টি ওয়ানডে ও ১১ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে এই ব্যাটার ছক্কা মেরেছেন যথাক্রমে ১৫ ও ৮টি।

র্জাতিকের বাইরে তিন ফরম্যাটে মোট ১৬৬ ম্যাচে হৃদয়ের ব্যাট থেকে এসেছে ১২১ ছক্কা। তাই হৃদয় সাহস নিয়েই বলেছেন, ‘‘আমি মনে করি, ছয় মারা কঠিন কিছু না। যদি আত্মবিশ্বাসটা থাকে, আমার মনে হয় ছক্কা যেকোনো সময় যেকোনো মাঠে হবে।’’

হৃদয় আরও যোগ করেন ছক্কা মারার অভ্যাসটা তৈরি হবে খেলতে খেলতেই, ‘‘ছয় মারতে পাওয়ার লাগে (দরকার হয়) কিংবা বড় প্লেয়াররা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের যারা আছে, তারাই বড় ছয় মারে ব্যাপারটা এমন না। আমাদের দেশের ব্যাটাররাও বড় ছয় মারে। আপনি যদি খেয়াল করে দেখেন, প্রত্যেকটা ব্যাটারই বড় বড় ছয় মারে।’’

‘‘আমার কাছে মনে হয়েছে, আমরা এ রকম পরিস্থিতিতে কম অভ্যস্ত। আমরা যখন আস্তে আস্তে খেলতে থাকব, আরও ম্যাচে যখন এ রকম ছয় মারব, প্রত্যেকটা ব্যাটার যখন মারবে, তখন আত্মবিশ্বাসটা আসবে যে আমি মারলেও ছয় হবে।’’

লম্বা ফরম্যাটে সেঞ্চুরি আছে তাওহিদ হৃদয়ের। যে কোনও ক্রিকেটারের জন্য লঙ্গার ভার্সনের সেঞ্চুরি সবসময় বিশেষ। হৃদয়ের ‘‘বিশেষ’’ অন্য জায়গায়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বয়সভিত্তিক পর্যায়ে টানা তিন সেঞ্চুরি করেছিলেন ওয়ানডেতে। সেই ধারাবাহিক তিনটি সেঞ্চুরিকে স্মরণীয়’র তালিকায় এগিয়ে রাখলেন।

তাই বলে টি-টোয়েন্টির প্রথম সেঞ্চুরিতে আলাদা মর্যাদা দেবেন না, এমন হতে পারে না। বিপিএলে ষষ্ঠ বাংলাদেশি হিসেবে সেঞ্চুরি করা এই তরুণ বলছিলেন, ‘‘প্রতিটা ব্যাটারের জন্যই একটা সেঞ্চুরি অনেক কিছু। গত বছরও বিপিএলে সেঞ্চুরি করার সুযোগ ছিল আমার, কিন্তু করতে পারিনি। এবার হয়েছে আলহামদুলিল্লাহ।”

বিপিএলে ষষ্ঠ বাংলাদেশি সেঞ্চুরিয়ান হিসেবে রেকর্ড বইয়ে নাম তোলার কীর্তি মাথায় ছিল না হৃদয়ের। ম্যাচ শেষে জেনেছেন। সেই সুখস্মৃতি নিয়ে এবার আরও এগোতে চান।

অবশ্য হৃদয়ের প্রথম টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরির দিনটি অবশ্য আরও এক কারণে বিশেষ। ২০২০ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি হৃদয়রা ভারতকে হারিয়ে যুব বিশ্বকাপ জিতেছিলেন। এই তারিখের প্রথম সেঞ্চুরিকে মনে রাখবেন চিরদিন।  

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist