Beta
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

আবদুল গফুর স্মারক বক্তৃতা: বাংলাদেশের ১০ করণীয় উপস্থাপন

অর্থনৈতিক বৈষম্য বাড়লে সেটা রাজনীতিকে প্রভাবিত করে, এমনটাই উঠে আসে স্মারক বক্তৃতায়

বৈষম্য কমাতে আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশের জন্য ১০ করণীয় সম্পর্কে ধারণা দিয়েছেন জাতিসংঘের সাবেক গবেষণা প্রধান ও জাপানের এশিয়ান গ্রোথ ইনস্টিটিউশনের ভিজিটিং প্রফেসর ড. নজরুল ইসলাম।

বুধবার বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) আয়োজিত ‘আবদুল গফুর স্বারক বক্তৃতা ২০২৪’-এ এই ধারণা উপস্থাপন করেন তিন।

এগুলো হলো— অর্থনৈতিক বৈষম্য কমানো, সুশাসন অর্জন, গণতন্ত্রের মানোন্নয়ন ও আনুপাতিক নির্বাচন ব্যবস্থার প্রবর্তন, পরিবেশ রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা, গ্রাম পরিষদ গঠন, ভৌগলিক বৈষম্যের অবসান, সামাজিক সংহতি বৃদ্ধি,  নারী এবং শিশু ও যুব সমাজের প্রতি বিশেষ মনোযোগ প্রদান, সর্বজনীন সামরিক শিক্ষা প্রবর্তন, জাতীয় সম্পদের সুরক্ষা ও নিরপেক্ষ বৈদেশিক নীতির অনুসরণ।

এ সময় ড. নজরুল ইসলাম বলেন, বৈষম্য বেশি হলে দেশ এগোতে পারে না। তার একটি কারণ হলো বৈষম্য ফাঁদ সৃষ্টি করে। অর্থনৈতিক বৈষম্য বাড়লে সেটা রাজনীতিকে প্রভাবিত করে।

বক্তৃতা শেষে নিজের মতামত তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর অর্থবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেন, বৈষম্য আগের চেয়ে অনেক কমেছে। তাছাড়া অন্যান্য বিষয়গুলোতেও সরকারের নজর রয়েছে। তবে সর্বজনীন সামরিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা বাংলাদেশে আছে বলে মনে করেন না তিনি।

অধ্যাপক রেহমান সোবহানও বৈষম্য দূর করার বিষয়ে তার মতামত তুলে ধরেন।

বিআইডিএস মহাপরিচালক বিনায়ক সেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মনোনীত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানিত ফেলো অধ্যাপক ড. রওনক জাহান এবং বিআইডিএসের গবেষণা পরিচালক ড. কাজী ইকবাল।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist