Beta
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪
Beta
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪

নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় বাদী ব্যক্তিগত আইনজীবী নিতে পারবে

court
Picture of সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

সকাল সন্ধ্যা ডেস্ক

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের মামলায় বাদী (ভিকটিম) তার পক্ষে মামলা পরিচালনা করার জন্য ব্যক্তিগতভাবে আইনজীবী নিয়োগ করতে পারবে বলে স্পষ্ট করেছে হাইকোর্ট প্রশাসন।

সাধারণত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বাদীপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর (রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী)। তবে কোনও কোনও ভিকটিম ব্যক্তিগতভাবে আইনজীবী নিয়োগ দিয়ে থাকেন। এ নিয়োগের ক্ষেত্রে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন তারা। তাই এ বিষয়ে স্পষ্ট করতে হাইকোর্ট বিভাগ নোটিশ দিয়েছে।

হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার (বিচার) এস কে এম তোফায়েল হাসানের সই করা একটি নোটিশ গত ৯ মে সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

নোটিশের ভাষ্যমতে, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অভিযোগকারী বা ভিকটিমের ব্যক্তিগতভাবে আইনজীবী নিয়োগ করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যা বা বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ২৫ (১) ধারায় বলা হয়েছে, “এই আইনে ভিন্নরূপ কিছু না থাকিলে, কোনও অপরাধের অভিযোগ দায়ের, তদন্ত, বিচার ও নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে ফৌজদারী কার্যবিধির বিধানাবলী প্রযোজ্য হইবে এবং ট্রাইব্যুনাল একটি দায়রা আদালত বলিয়া গণ্য হইবে এবং এই আইনের অধীন যে কোনও অপরাধ বা তদনুসারে অন্য কোনও অপরাধ বিচারের ক্ষেত্রে দায়রা আদালতের সকল ক্ষমতা প্রয়োগ করিতে পারিবে।”

২৫ (২) ধারায় বলা হয়েছে, “ট্রাইব্যুনালে অভিযোগকারীর পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী ব্যক্তি পাবলিক প্রসিকিউটর বলিয়া গণ্য হইবেন।”

অনেক সময় এ আইনে বাদীপক্ষ পৃথক আইনজীবী নিয়োগ দিতে গিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হয়। এই প্রেক্ষাপটে দেওয়া হাইকোর্ট বিভাগের নোটিশে হয়েছে, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৯৩ এবং ৪৯৫ ধারার বিধানাবলী অনুসরণ করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অভিযোগকারী বা ভিকটিমের পক্ষে ব্যক্তিগতভাবে আইনজীবী নিযুক্ত করে মামলা পরিচালনা করার সুযোগ আছে। সংশ্লিষ্ট সকলের জন্য বিষয়টি স্পষ্ট হওয়া আবশ্যক।

নোটিশে আরও বলা হয়, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৯৩ এবং ৪৯৫ ধারার বিধানাবলী অনুসরণ করে ভিকটিম বা অভিযোগকারী তার পক্ষে ব্যক্তিগতভাবে আইনজীবী নিযুক্ত করে মামলা পরিচালনা করতে পারবেন বলে বিষয়টি স্পষ্টীকরণ করা হলো।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু সকাল সন্ধ্যাকে বলেন, বাদীপক্ষ তাদের পক্ষে ব্যক্তিগত আইনজীবী নিয়োগ দিতে পারত না– বিষয়টি এমন নয়। বাদীপক্ষ ওকালতনামা দিয়ে তাদের ব্যক্তিগত আইনজীবীদের মাধ্যমেই মামলা দায়ের করে থাকেন। পরবর্তী সময়ে মামলাটি যখন তদন্ত শেষ করে বিচার শুরু হয় তখন মামলাটি পরিচালনা করে থাকেন প্রসিকিউটরা।

তিনি বলেন, এখন হাইকোর্ট বিভাগ নোটিশ দেওয়ার ফলে বাদীপক্ষের আইনজীবী এবং প্রসিকিউটর যৌথভাবে মামলা পরিচালনা করতে পারবেন। এতে আরও ভালো হবে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বা প্রসিকিউটরের সঙ্গে বাদীপক্ষের আইনজীবীও যুক্ত থাকতে পারবেন।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত