Beta
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪

‘১০০ টাকার’ সেই গোলকিপারে গর্বিত সংসদ সদস্য

অনূর্ধ্ব-১৬ নারী সাফের সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন বাংলাদেশের ইয়ারজান (ফাইল ফটো)
অনূর্ধ্ব-১৬ নারী সাফের সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন বাংলাদেশের ইয়ারজান (ফাইল ফটো)

‘‘তুমি আমাদের সম্মানিত করেছ ইয়ারজান! পঞ্চগড়বাসী গর্বিত..’’-কাল (সোমবার) নিজের ফেইসবুকে এই স্ট্যাটাস দিয়েছেন পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া (মুক্তা)।

নিজের এলাকার অনূর্ধ্ব-১৬ নারী জাতীয় দলের গোলরক্ষক  ইয়ারজান বেগমের সাফল্যে গর্বিত হতেই পারেন যে কেউ। পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাঁড়িভাসা ইউনিয়নের খোপড়াবান্দি গ্রাম থেকে উঠে আসা মেয়েটির সাফল্যের আসল কৃতিত্ব তার সংগ্রামী মা রেনু বেগমের।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৬ জয়ী বাংলাদেশ জাতীয় দলের গোলরক্ষক ইয়ারজান বেগমের বাবা আব্দুর রাজ্জাক শারীরিকভাবে অসুস্থ। জীবিকার জন্য কাজ করতে পরেন না । পরিবারটি চলে ইয়ারজানের মা রেনু বেগমের আয়ে। সারা দিন মাঠে অন্যের জমিতে কাজ করেন তিনি।

নেপালের মাঠে ভুটানের বিপক্ষে ইয়ারজানের খেলার দিন জীবিকার তাগিদে অন্যের বাদাম ক্ষেতে কাজ করছিলেন রেনু বেগম। শুধু একটা ম্যাচ নয় পুরো টুর্নামেন্টজুড়ে তিনি কাজ করেছেন পাশের গ্রামের কৃষিজমিতে।

নিজের জীবন সংগ্রাম নিয়ে রেনু বেগম জানালেন, ‘‘ সবাই বলছিল আমার মেয়ে ভালো খেলছে। কিন্তু আমাদের বাড়িতে টিভি নেই। খেলা দেখব কীভাবে?  সারা দিন কাজ করে বাড়ি ফেরার পর প্রতিবেশীদের ফোনে একটু খেলা দেখি। মানুষের কৃষিজমিতে কাজ করে দিনে ২৫০ টাকা মজুরি পাই। মেয়েকে দেই ১০০ টাকা। বাকি ১৫০ টাকায় সংসার চলে। এই ১০০ টাকাতেই আল্লাহর মেহেরবানিতে জাতীয় দলের গোলরক্ষক হয়ে উঠেছে মেয়েটা।’’

অন্যের কৃষিজমিতে কাজ করছেন ইয়ারজানের মা। ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ জাতীয় দলের মেয়েরা দেশে ফেরার পর পঞ্চগড়সহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন সাফের সেরা গোলরক্ষকের স্বীকৃতি পাওয়া ইয়ারজানদের বাড়িতে। তাদের মিষ্টিমুখ করানোর সামর্থ্য বা বসতে দেওয়ার মত চেয়ারও নেই পরিবারটির। 

সড়কের পাশের ছোট্ট দুটি ঘরে বসবাস তাদের। একটি ঘর একেবারে জরাজীর্ণ, এক পাশে ছাউনির টিনগুলোও খুলে গেছে। এমন একটি পরিবার থেকে দিনে মাত্র ১০০ টাকা খরচ করে গোলরক্ষক হয়ে উঠেছেন ইয়ারজান।

নিজের গ্রাম থেকে ১২ কিলোমিটার দূরের টুকু একাডেমিতে ফুটবল শিখেছেন ইয়ারজান। এত দূর যাওয়ার মত রিকশা ভাড়াও ছিল না তার। তাতে সাহায্য করেছেন একাডেমিটির স্বত্বাধিকারী টুকু রেহমান। ভালো মানের খাবার, দামি বুট-এসব তো আকাশ কুসুম কল্পনা। কখনও অভুক্তও থাকতে হয়েছে দুপুরে বা রাতে। ১০০ টাকায় আর কয় বেলা খাবার হয়?

সেই ইয়ারজানই এখন পঞ্চগড়ের গর্ব। তাকে নিয়ে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। তবে তাদের বাড়ি দেখতে এসে বিস্ময়ে চোখ ছানাবড়া হওয়া মানুষদের দাবি, ফেইসবুকে নয়-জাতীয় এই সম্পদের পরিবারের অন্তত মাথা গোঁজার ঠাঁইয়ের জন্য এগিয়ে আসতে হবে এলাকার চেয়ারম্যান বা সংসদ সদস্যকে।

আরও পড়ুন

সর্বশেষ

ad

সর্বাধিক পঠিত

Add New Playlist